৯ই জুলাই রাশিয়ায় শোক দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে. রাশিয়ার দক্ষিণাঞ্চলীয় কুবান এলাকায় বন্যার ফলে এবং ইউক্রেনে ভয়াবহ পথ-দুর্ঘটনায় নিহত রুশিদের স্মৃতিতে এ শোক দিবস ঘোষণা করা হয়েছে.

কুবান ট্রাজেডী ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়েই চলছে. সর্বশেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী ভয়াবহ এ বন্যায় ১৭১ জন মারা গেছে. প্রায় ২৬ হাজারেরও বেশী লোক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে. নিহতদের প্রথম সত্কার পর্ব ইতিমধ্যে অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং নিহত আরও ২০ জনকে আজ বিদায় জানাবেন তাঁদের পরিবার ও নিকট আত্মীয় স্বজন.

গত ৭ই জুলাই শনিবার রাতে কুবানে এ অঞ্চলের ইতিহাসে সবচেয়ে মারাত্মক বন্যা আঘাতহানে. পাহাড়ী ঢাল থেকে নেমে আসা বন্যার পানিতে গেলেঞ্জিক, নভোরসিইস্ক এবং ক্রিমস্ক এলাকা তলিয়ে যায়. ৬ মিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাওয়া পানি একতলা ঘর, গাড়ি ও শিকড়সহ গাছ উপড়ে ফেলেছে.

দুর্যোগে আক্রান্ত এলাকার অন্তত ৫ হাজার বসত-বাড়ি বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে এবং ৩ হাজারেরও অধিক মানুষ সবকিছু হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে. ক্রিমস্কের বন্যাদূর্গত এলাকা পরিদর্শন করেছেন রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন. বন্যায় বাড়ি হারিয়েছেন এমন সবার জন্য পুতিন নতুন বাড়ি তৈরির নির্দেশ দিয়েছেন. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির অংশগ্রহণে এক বৈঠক শেষে চুড়ান্তভাবে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়.

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ জনসাধারণদের সাহায্য প্রদান করছে রাশিয়ার জরুরি সহায়তা মন্ত্রণালয়. মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক বিষয়ক বিভাগের পরিচালক ইউরি ব্রাজনিকোভ রেডিও রাশিয়াকে এ সংবাদ জানিয়েছেন. তিনি বলেছেন, প্রয়োজনীয় দ্রব্য নিয়ে জরুরি সহায়তা মন্ত্রণালয়ের ৩টি বিমান ইতিমধ্যে দূর্গত অঞ্চলে পৌঁছে গেছে. এছাড়া চিকিত্সা সেবা প্রদানের জন্য মানসিক সহায়তার প্রয়োজন. অবশ্যই, বিধ্বস্ত বসত-বাড়িতে উদ্ধার অভিযান চালিয়ে যাওয়ার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে. জনসাধারনের উদ্ধারের জন্য প্রয়োজনীয় সবধরণের সাহায্য করা হচ্ছে.

নিহত পরিবারগুলোকে ফেডারেল বাজেট থেকে ১ মিলিয়ন ও আঞ্চলিক বাজেট থেকে ১ মিলিয়ন রুবল দেওয়া হবে. এই অর্থের পরিমান প্রায় ৭০ হাজার মার্কিন ডলার. এছাড়া ক্রাস্নোদার অঞ্চলের বাজেট থেকে ক্ষতিগ্রস্থ প্রতিটি লোককে প্রাথমিক প্রয়োজনীয় চাহিদা পূরণের জন্য ১০ হাজার রুবল দেওয়া হবে. স্বেচ্ছাসেবক, সমাজকর্মী, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকেও দুর্গত এলাকার মানুষ জনের জন্য অর্থ ও প্রয়োজনীয় দ্রব্য মজুদ করার কাজ শুরু হয়েছে.

মুশলধারায় বৃষ্টিপাতের কারণে বন্যা হয়েছে বলে কর্তৃপক্ষের বর্ণনা জানানো হয়েছে. সূত্রে আরও জানা যায়, স্থানীয় জলাধার থেকে পানির উপচে পড়ার ফলেও বন্যা ঘটতে পারে. জলাধারার বাঁধ দিয়ে পানি প্রবেশের কোন উত্স খুঁজে পাওয়া যায় নি.

৭ই জুলাই আরও একটি ট্রাজেডীর ঘটনা ঘটে. রাশিয়ার তীর্থযাত্রীদের বহনকারী একটি বাস মারাত্বক দূর্ঘটনার স্বীকার হয়. ওই দিন ইউক্রেনের পস্কোভ প্রদেশের পস্কোভ লাইরেল চার্চ দর্শন করে আসা তীর্থযাত্রীরা দুর্ঘটনার স্বীকার হন. এ ঘটনায় ১৪ জন নিহত ও ২৯ জন আহত হয়. আহতদের মস্কো ও পস্কোভে চিকিত্সার জন্য পাঠানো হয়েছে. এ কাজের সব খরচ পস্কোভ প্রদেশের প্রশাসন বহন করবে. এছাড়া স্থানীয় বাজেট থেকে নিহতদের পরিবারগুলোকে প্রায় ২০ হাজার এবং আহতদের ৬ হাজারেরও বেশী মার্কিন ডলার প্রদান করা হবে. রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন বাস দুর্ঘটনায় নিহত প্রতিটি পরিবারকে ৩০ হাজার মার্কিন ডলার দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন.

এদিকে সর্বরাশিয়ার অর্থডক্স চার্চের প্রধান প্যাত্রিক ক্রিল শোক দিবস উপলক্ষ্যে খ্রীষ্ট স্পাসিটেলিয়া চার্চে মৃত ব্যক্তিদের আত্মার শান্তি কামনায় বিশেষ প্রার্থনা করেছেন. নিহতদের স্মরণে ক্রাস্নোদার ও পস্কোভের চার্চসহ রাশিয়ার বিভিন্ন অঞ্চলে পালিত হয়েছে.