লন্ডনে ২৭শে জুলাই থেকে ১২ই জুন হতে যাওয়া গ্রীষ্ম অলিম্পিকে রাশিয়া পদক প্রাপ্তির বেসরকারি তালিকায় প্রথম তিনটি দেশের মধ্যে থাকতে চায়. রাশিয়ার আসল প্রতিদ্বন্দ্বী হবে চিন, আমেরিকা, জার্মানী ও গ্রেট ব্রিটেন.

ইংল্যান্ডের রাজধানীতে ৩৭টি ক্রীড়া বিভাগে মোট ৩০২টি সেট পদকের জন্য প্রতিযোগিতা হবে. রাশিয়া এখনই এর মধ্যে ৩৪টি খেলাধূলার বিভাগে অংশ নেওয়ার জন্য লাইসেন্স পেয়ে গিয়েছে. রাশিয়ার জাতীয় দল রীতিমতো প্রতিনিধিত্ব মূলক – দলে প্রায় ৪৫০ ক্রীড়াবিদ. রাশিয়ার ক্রীড়া মন্ত্রী ভিতালি মুতকোর মতে রাশিয়া ২০টিরও বেশী স্বর্ণপদক জয় করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ. তিনি বলেছেন:

"আগের মতোই আমরা খুবই আশা করছি আমাদের ঐতিহ্য গত ক্রীড়া বিভাগের উপর – কুস্তি, বক্সিং, আর্টিস্টিক জিমন্যাসটিক্স, সিনক্রনিক সুইমিং. ডাইভিংয়েও আমাদের ভালো দল. জাতীয় দলের গড় বয়স – ২৬ বছর. খুবই প্রতিযোগিতার উপযুক্ত ও উদ্দীপ্ত দল, তাই আমরা আশা করছি, যে সবচেয়ে বেশী সংখ্যক পদক জয়ী প্রথম তিনটি দেশের মধ্যে থাকবো".

ক্রীড়া মন্ত্রীর কথায়, রাশিয়ার বাস্তবিক কারণেই অলিম্পিকের সবচেয়ে জয়ের উপযুক্ত দল চীন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে পাল্লা দেওয়া শক্ত হবে. তবে খেলাধূলার বিষয়ে কখনো পূর্বাভাস দেওয়া যায় না. অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সাফল্য নির্ভর করবে ক্রীড়াবিদ দের মনোভাব, সৌভাগ্য ও অবশ্যই পেশাদারীত্বের উপর. তিনি এই প্রসঙ্গে আরও যোগ করে বলেছেন:

"মহিলাদের ওয়াটার পোলো দল খুব ভালো. আমাদের খুব শক্তিশালী মহিলাদের হ্যান্ডবল টিম, বাস্কেটবলেও বিশ্বের অন্যতম সেরা টিম. পুরুষদের ভলিবল দলও বিশ্বে অন্যতম শক্তিশালী দল আর তাই সবমিলিয়ে, আমি আশা করছি, যে আমরা সাফল্যের সাথে এখানে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবো".

রুশ জনগন দেশের প্যারা অলিম্পিক খেলোয়াড়দের উপরও অনেক প্রত্যাশা করছে. তাই ভিতালি মুতকো বলেছেন:

"আমি বলতে পারি, যে আমাদের প্যারা অলিম্পিক দল খুবই শক্তিশালী. ১৮২ জন শারীরিক ভাবে প্রতিবন্ধী ক্রীড়াবিদ অলিম্পিকে যাবে. এই সংখ্যা বেজিং অলিম্পিকে যোগদানকারী দের প্রায় দ্বিগুণ. তবে এটাই মুখ্য নয়. আমরা চাইছি যাতে দেশে প্রতিবন্ধীদের জন্য খেলাধুলার উন্নয়নে জনগনকে এই দলের সাফল্য দিয়ে উদ্বুদ্ধ করা যায়".

ভিতালি মুতকোর কথায় প্যারা অলিম্পিকে রাশিয়া সম্ভাব্য ২০টি বিভাগের মধ্যে ১২টিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে. ভবিষ্যতে প্যারা অলিম্পিক খেলোয়াড়দের সংখ্যা বাড়ানোর পরিকল্পনা আছে. এটা সম্ভব হবে দেশে প্রতিবন্ধীদের জন্য বহু ক্রীড়া কেন্দ্র খোলার দৌলতে. তাদের জন্য প্রথম সব রকমের খেলার উপযুক্ত ক্রীড়া প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ‘ওকা’ ইতিমধ্যেই চালু হয়েছে.