২৮- ২৯শে জুন ব্রাসেলসে অনুষ্ঠিতব্য ইউরোপীয় সংঘের শীর্ষবৈঠকে মুখ্য কর্তব্য হবে, যেন স্বচ্ছ ও গঠনমুলক সঙ্কেত দেওয়া হয়, যে কিভাবে ইউরোপ আর্থিক সংকটের জবাব দেবে. গতকাল ইউরোপীয় সংঘের প্রধান হেরম্যান ভ্যান রোমপেই এই উদ্ধৃতি দিয়ে সব সদস্য দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের চিঠি পাঠিয়েছেন. আজ শীর্ষবৈঠক নির্দিষ্ট সময়ের ২ঘন্টা আগে শুরু হবে, ইউরোপীয় সংঘে আলোচ্য বিষয়ের জটিলতার কারণেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে. বৈঠকে বহু বছরব্যাপী অর্থনৈতিক স্কিম নিয়ে আলোচনা হবে. ১০ বছর মেয়াদী পরিকল্পনার লক্ষ্য হচ্ছে আর্থিক শৃঙ্খলা বাড়ানো ও ভবিষ্যতে ঋণসংকট এড়ানো. তবে সমালোচকেরা উল্লেখ করছেন, যে এই পরিকল্পনা ঋণসংকট মেটাতে পারবে না. বৈঠকের ঠিক আগে জার্মানীর চ্যান্সেলর অ্যানজেলা মের্কেল ফ্রান্সের রাষ্ট্রপতি ফ্রাসুঁয়া ওলানের সাথে দ্বিপাক্ষিক সাক্ষাত্কারে মিলিত হয়েছিলেন. ইউরোপীয় সংঘের প্রধান দেশগুলির মধ্যে এখনো গুরুতর মতবিরোধ রয়েছে. জার্মানী তথাকথিত ঋণের হার একমাত্রার করা ও ইউরোবন্ড চালু করার বিপক্ষে. ফ্রান্স জেদ করছে, যে আরও ঐক্যবদ্ধ হওয়া ও অর্থনীতিকে উদ্বুদ্ধ করার জন্য. মের্কেলের ভাষায় সংকটমোচনের কোনো নির্দিষ্ট ফরম্যুলা নেই. প্যারিস থেকে যাত্রা করার আগে মের্কেল এই আশাপ্রকাশ করেছেন, যে গত সপ্তাহে ইতালির প্রধানমন্ত্রী মারিও মন্তি প্রস্তাবিত অর্থনৈতিক উন্নয়ন, যার মূল্য ১৩ হাজার কোটি ইউরো, তা অনুমোদন করবে. ফ্রান্সের রাষ্ট্রপতি ফ্রাঁসুয়া ওলানও মারিও মন্তির প্রস্তাবের সমর্থক.