মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ার বিরোধীপক্ষের সশস্ত্র দলগুলিকে সামরিক সাহায্য না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, “চিকাগো ট্রিবিউন” পত্রিকাকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে এ কথা বলেছেন পেন্টাগনের প্রধান লেওন পানেট্টা. তাঁর কথায়, এ সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে রয়েছে এই উপলব্ধি যে, এমন সাহায্য সিরিয়ায় পূর্ণ পরিসরের গৃহযুদ্ধ বাধাতে পারে. তাঁর মতে, এখন অতি গুরুত্বপূর্ণ হল সিরিয়ায় শাসন ক্ষমতার “মসৃণ ও দায়িত্বশীল রাজনৈতিক রূপান্তরের প্রতি প্রত্যেক পক্ষের মনোযোগ নিবদ্ধ করা”. ওয়াশিংটন আশা করে যে, “শুধু রাশিয়াই নয়, অন্যান্য দেশও সিরিয়াকে কোনো অস্ত্র সরবরাহ করবে না”, যোগ করে বলেন তিনি. পানেট্টা এ স্থিরবিশ্বাস প্রকাশ করেন যে, সিরিয়াতে থাকা রাসায়নিক অস্ত্র বিরোধীপক্ষ অথবা সন্ত্রাসবাদীদের হাতে পড়বে না. আগে এ সপ্তাহে “নিউ-ইয়র্ক টাইমস” পত্রিকা জানিয়েছিল যে, তুরস্কে মার্কিনী কেন্দ্রীয় গুপ্তচর বিভাগের একদল কর্মী, সিরিয়ার সীমানার অদূরে, নির্ধারণ করতে সাহায্য করছে, কোন কোন সিরিয়ার বিরোধী দলকে অস্ত্র সরবরাহ করার অর্থ আছে. পত্রিকাটি জোর দিয়ে লিখেছে যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিজে সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি আসদের বিরোধীদের অস্ত্র সরবরাহ করছে না. তবে, “নিউ-ইয়র্ক টাইমস” পত্রিকার সংলাপী উল্লেখ করেন যে, মার্কিনী কেন্দ্রীয় গুপ্তচর বিভাগের কর্মীরা তুরস্ক, সৌদি আরব ও কাতারের অর্থে কেনা অস্ত্রশস্ত্র ও গোলা-বারুদ বণ্টন করতে সাহায্য করছে.