মেক্সিকোর লস- কাবোস শহরে হওয়া “কুড়িটি” দেশের নেতাদের শীর্ষ সম্মেলনের পরে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন বুধবারে (মস্কো সময়) নিজের অংশগ্রহণের মূল্যায়ন করেছেন.

রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি তাঁর বিশ্বাস সম্বন্ধে বলেছেন যে, ইউরো অঞ্চলে পরিস্থিতি ভালোর দিকেই যাবে. পুতিন যেমন ব্যাখ্যা করেছেন যে, ইতিবাচক মানসিকতা তাঁর হয়েছে কারণ ইউরো কমিশনের নেতৃত্ব ও ইউরো অঞ্চলের প্রধান দেশ গুলির নেতৃত্বের সেই দৃষ্টিভঙ্গী, যা নিয়ে তাঁরা নিজেদের সামনে উপস্থিতি থাকা সমস্যার সমাধান করতে চাইছেন, তা দেখে.

রাশিয়া “জি- ২০” গোষ্ঠীর সভাপতিত্ব গ্রহণের পরে এর আগে “বড় কুড়ি” দেশের শীর্ষ সম্মেলনে নেওয়া সমস্ত সিদ্ধান্ত গুলির বাস্তবায়নের সম্বন্ধে মূল্যায়ন করার উদ্যোগ নেবে বলে ভ্লাদিমির পুতিন ঘোষণা করেছেন.

তাঁর কথামতো, রুশ প্রজাতন্ত্র এই ফোরামের কাজের পরম্পরা বজায় রাখতে তৈরী আছে, সেই সমস্ত সমস্যা নিয়ে আলোচনা বেশী মনোযোগ দিয়ে করা দরকার মনে করে, যেগুলির সমাধানের জন্যই এই “বড় কুড়ি” দেশের সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছিল. এখানে প্রয়োজন রয়েছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা ও বিনিয়োগ ব্যবস্থাকে সংশোধন চালিয়ে যাওয়া দরকার, মজবুত করা দরকার আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ ইনস্টিটিউট গুলিকে, আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ বাজারের নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে পুনর্গঠন করার দরকার আছে বলেই পুতিন উল্লেখ করেছেন.

“একই সঙ্গে আমরা সেই সমস্ত আর্থিক নয় এমন বিষয়ে আলোচনা চালিয়ে যাবো, যেমন, জ্বালানী ও পরিবেশ, বিশ্বের বাণিজ্য ও উন্নয়নে সাহায্য করা নিয়ে”, - উল্লেখ করেছেন রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি.

তিনি জানিয়েছেন যে, পরবর্তী জি- ২০ শীর্ষ সম্মেলনের আলোচ্য বিষয়, যা ২০১৩ সালের হেমন্তে সেন্ট পিটার্সবার্গে অনুষ্ঠিত হবে, তা তৈরী করা হবে বিশ্বের অর্থনীতি কি ভাবে বিকাশ হচ্ছে, তার উপরে ভিত্তি করে ও আন্তর্জাতিক অর্থনীতির পরিস্থিতি দেখেই.

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার পক্ষে রকেট বিরোধী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে সমস্যার সমাধান করা সম্ভব হচ্ছে না বলে পুতিন উল্লেখ করেছেন. তিনি ব্যাখ্যা করেছেন যে, “এর মধ্যেই আজ প্রথম বছর নয়, যখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে নিজেদের রকেট বিরোধী ব্যবস্থা সৃষ্টি করা চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে”. তাঁর মতে, এই পরিস্থিতিকে সম্পূর্ণ ভাবে পরিবর্তন করতে পারে শুধু একটি উপায়েই, যদি রাশিয়ার প্রস্তাব মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মেনে নেয় তবেই.

“তা এই রকমের যে, আমরা, অর্থাত্ রাশিয়া, আমেরিকা ও ইউরোপ যদি এই ব্যবস্থার সমানাধিকার পায় ও সমান ভাবে অংশ গ্রহণ করে. এর অর্থ হবে যে, এই প্রক্রিয়ার তিনটের সব কটি অংশীদারই এই ব্যবস্থা তৈরী করবে, সকলে মিলে সেই বিপদের মূল্যায়ন করবে, যা অন্য কোথাও থেকে আসতে পারে ও সম্মিলিত ভাবে এই ব্যবস্থাকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে এবং সিদ্ধান্ত নিতে পারে কি ভাবে তা ব্যবহার করা হবে”, - দেশের নেতা বলেছেন.

তিনি একই সঙ্গে ঘোষণা করেছেন যে, জ্যাকসন- ভেনিক সংশোধন রাশিয়া ও আমেরিকার অর্থনীতির ক্ষতি করে ও আশা প্রকাশ করেছেন যে, তা বাতিল করা হবে.

রাশিয়ার প্রতিনিধি দলের লন্ডন অলিম্পিকে নেতৃত্ব করবেন রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ, কিন্তু ভ্লাদিমির পুতিন পরিকল্পনা করেছেন লন্ডন যাবেন ব্যক্তিগত এক সফরে, যেখানে তিনি জ্যুডো প্রতিযোগিতা দেখবেন.