রাশিয়া ও চিনের স্ট্র্যাটেজিক ভাবে সহকর্মী হিসাবে কাজ একটি কার্যকরী কারণ, যা আঞ্চলিক ও বিশ্ব পর্যায়ে স্থিতিশীলতাকে মজবুত করে. এই মত প্রকাশ করেছেন ভ্লাদিমির পুতিন এক প্রবন্ধে, যা চিনের সংবাদপত্র “ঝেনমিন ঝিয়াবাও” প্রকাশ করেছে. পুতিন লিখেছেন যে, দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ককে, উচিত্ কারণেই বলা হয়ে থাকে নতুন ধরনের আন্তর্জাতিক যোগাযোগের উদাহরণ. এই গুলি বিভিন্ন ধরনের কল্পিত ধারণা ও চলে আসা মতের উপরে নির্ভরশীল নয়. আর তার অর্থ হল – খুবই স্থিতিশীল, যা আজকের দিনের বিশ্বে খুবই মূল্যবান, যেখানে পারস্পরিক ভরসা ও স্থিতিশীলতার অত্যন্ত বেশী অভাব রয়েছে. যে কোন সুস্থ চিন্তাশীল রাজনীতিবিদ স্বীকার করেন যে, বিশ্বের কর্মসূচী গঠন ও বাস্তবায়ন করাই সম্ভব নয়, যদি তা রাশিয়া ও চিনের অগোচরে করতে যাওয়া হয় ও তাদের স্বার্থের কথা চিন্তা না করে করা হয়. পুতিন বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন যে, বর্তমানের একবিংশ শতাব্দীর  বিশ্বের ভূ-রাজনৈতিক বাস্তব এই রকমের.