রাশিয়া ও উজবেকিস্তান আফগানিস্তান থেকে ন্যাটো বাহিনীর আগামী অপসারণ উপলক্ষ্যে সহযোগিতার পরিপ্রেক্ষিত আলোচনা করছে. এ সম্বন্ধে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন তাশখন্দ সফরের শেষে, যেখানে তিনি সাক্ষাত্ করেন উজবেকিস্তানের রাষ্ট্রপতি ইস্লাম কারিমভের সাথে. তিনি যোগ করে বলেন যে, মস্কো ও তাশখন্দ একসারি আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক সংস্থায় সহযোগিতা করছে. আফগানিস্তান সম্পর্কে সহযোগিতার বিপুল গুরুত্ব রয়েছে, কারণ তা রাশিয়ার নিরাপত্তার সাথে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত. তাশখন্দে আলাপ-আলোচনার সময় পুতিন বলেন যে রাশিয়ার জন্য উজবেকিস্তান – এ অঞ্চলে অন্যতম প্রধান শরিক. মস্কো উজবেকিস্তানের সাথে সম্পর্ক বিকাশ করবে “দু দেশের জনগণের মাঝে সম্পর্কের গভীর মূল এবং তার ক্ষমতা অনুযায়ী”. রাষ্ট্রপতি কারিমভ বলেন যে, তাশখন্দ রাশিয়াকে দেখে “এমন শক্তি হিসেবে, যা মধ্য এশিয়ার পরিস্থিতি সম্পর্কে কখনই নিরাসক্ত ছিল না”. তিনি উল্লেখ করেন যে, আফগানিস্তানের পরিস্থিতি উজবেকিস্তানের গুরুতর উদ্বেগ জাগায়, বিশেষ করে, ২০১৪ সালে এ দেশ থেকে আন্তর্জাতিক বাহিনীর অপসারণ উপলক্ষে. কারিমভ যোগ করে বলেন যে, আফগানিস্তান থেকে সৈন্যবাহিনী অপসারণের আগে সেখানে শক্তিশালী সৈন্যবাহিনী গঠন করা এবং অন্যান্য একসারি গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা মীমাংসা করা উচিত.