সিরিয়ার গ্রন্থি আরও শক্ত করে পাকিয়ে উঠেছে. দামাস্কাস পশ্চিমকে তাদের দেশকে কলোনি বানানোর প্রচেষ্টা করার জন্য অভিযুক্ত করেছে. সিরিয়ার বিরোধী পক্ষ রাষ্ট্রপতি বাশার আসাদের তরফ থেকে রাজনৈতিক আলোচনা শুরু করার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে. এই পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রসঙ্ঘ ও আরব লীগের বিশেষ প্রতিনিধি কোফি আন্নান ঘোষণা করেছেন যে, সিরিয়া গৃহযুদ্ধের দিকে যাচ্ছে.

 ইউরোপীয় নেতারা, এমনকি মার্কিন রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা নিজেও সিরিয়ার বিরোধে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের থেকে অনুমতি আদায় না করে হস্তক্ষেপ করতে যেতে চাইছেন না, এই রকম মনে করেছেন লন্ডন স্কুল অফ ইকনমিক্সের বিশেষজ্ঞ ফাওয়াজ হার্গেস. আর সেই কারণেই এখানে রাশিয়ার ভূমিকা এতটাই গুরুত্বপূর্ণ, যাকে তিনি মনে করেছেন সিরিয়ার সঙ্কট সমাধানের ক্ষেত্রে সবচেয়ে লক্ষ্যণীয় ভূমিকা সম্পন্ন বলেই.

 তারই মধ্যে সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি বাশার আসাদ পশ্চিমকে অভিযোগ করেছেন যে, তারা যুদ্ধ করছে তাঁর দেশকে কলোনিতে পরিবর্তিত করার জন্য. এই বিষয়ে তিনি তাঁর দেশের নব নির্বাচিত পার্লামেন্টের সামনে ঘোষণা করে বক্তব্য প্রকাশ করে বলেছেন:

 “আন্তর্জাতিক সমাজ, তাদের মধ্যে এই অঞ্চলেরও কিছু দেশ রয়েছে, যারা মনে করেছে যে সিরিয়াতে শুধু শান্তিপূর্ণ মিছিলই হচ্ছে আর শুধু প্রশাসনই রক্তপাত করছে. কিন্তু প্রায় দেড় বছর আগে শুরু হওয়া এই বিরোধের এখন সমস্ত মুখোশ খুলে পড়েছে. আন্তর্জাতিক সমাজের ভূমিকা স্পষ্টই দেখতে পাওয়া যাচ্ছে. কাকে কলোনি তৈরীর উচ্চাকাঙ্ক্ষা বলে, তা এখন আর কাউকে বুঝিয়ে বলতে হবে না. তা ছিল আগেও, এখনও আছে ও ভবিষ্যতেও থাকবে”.

 আসাদ তারই সঙ্গে ঘোষণা করেছেন যে, সিরিয়াকে রক্ষা করতে পারে শুধু রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত, যা খুঁজতে প্রশাসন আগের মতই তৈরী রয়েছে বিরোধী পক্ষের সঙ্গে একই সঙ্গে. আর বিশেষ করে উল্লেখ করেছেন: আলোচনা শুধু তাদের সঙ্গেই করা সম্ভব, যারা আন্তর্জাতিক সামরিক অনুপ্রবেশ সমর্থন করে না ও সন্ত্রাসবাদীদের হাতের যন্ত্র নয়. কিন্তু বিরোধী সিরিয়ার জাতীয় সভা বাশার আসাদের আহ্বানকে প্রত্যাখ্যান করেছে. আসাদের বক্তৃতায় তাঁর এক প্রাক্তন সহকর্মী ও বর্তমানে একজন প্রধান সমালোচক তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী তৈপ এর্দোগান প্রতিক্রিয়া প্রদর্শন করেছেন, তিনি বলেছেন:

 “বাশার আসাদ সব সময়েই বাইরের দেশের ভূমিকা নিয়ে বলেছেন. যখন রক্তপাত ঘটছে সিরিয়ার এলাকার মধ্যে, তখন তিনি বারবার বলছেন যে, এই সব খুনের পিছনে রয়েছে বাইরের দেশ থেকে যারা পুতুল খেলা করাচ্ছে. তিনি বলেছেন যে, নির্বাচন সিরিয়ার জনগনের মতামতের প্রমাণ হয়েছে. কিন্তু সকলেই জানে যে, সেই নির্বাচন সত্ হয় নি. বিরোধীরা এখানে কোন ভাবে অংশ নেয় নি”.

 তারই মধ্যে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রকের প্রধান সের্গেই লাভরভ ৩রা জুন কোফি আন্নানের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলার সময়ে বিশেষ প্রতিনিধির শান্তি পরিকল্পনাকে সঙ্কট মোচনের জন্য কেন বিকল্প রহিত ভিত্তি বলেছেন. সেই রকমেরই দৃষ্টিকোণ রাখে চিন. আন্নানের পরিকল্পনা প্রত্যাখ্যান করার ফলে সিরিয়াতে সম্পূর্ণ আকারের গৃহযুদ্ধ শুরু হয়ে যেতে পারে, এই কথা আজ লেখা হয়েছে চিনের কমিউনিস্ট পার্টির প্রকাশনা থেকে বের হওয়া ঝেনমিন ঝিবাও পত্রিকায়. পত্রিকার প্রবন্ধে লেখা হয়েছে - আন্তর্জাতিক সমাজকে আরও ধৈর্য ধরতে ও কোন রকমের সেই ধারণার প্ররোচনায় পা না দিতে, যেখানে বলা হয়েছে যে, কোফি আন্নানের পরিকল্পনা মৃত.