রাশিয়ার অস্ত্রের পরবর্তী ক্ষেপ সিরিয়াতে পাঠানোতে, যদি সত্যিই তা হয়ে থাকে, আশ্চর্যের কিছু নেই, যেমন তা প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করছে একসারি বিদেশী প্রচার মাধ্যম. এ সম্বন্ধে “ইন্টারফাক্স”সংবাদ এজেন্সিকে শুক্রবার বলেছেন রাশিয়ার বিজ্ঞান অ্যাকাডেমির প্রাচ্যতত্ত্ব ইনস্টিটিউটের আরব অধ্যয়ন কেন্দ্রের বরিষ্ঠ বৈজ্ঞানিক কর্মী ভ্লাদিমির কুদেলেভ. মালবাহী জাহাজ যদি সত্যিই সিরিয়ায় রাশিয়ার অস্ত্র সরবরাহ করে থাকে তাহলে তা এরই প্রমাণ দেয় যে, রাশিয়া চুক্তি অনুযায়ী নিজের বাধ্যবাধকতা পুরণ করছে. তিনি উল্লেখ করেন যে, আজকের দিন পর্যন্ত সিরিয়ায় অস্ত্র ও সামরিক প্রযুক্তি সরবরাহ সম্পর্কে কোনো আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা নেই. তিনি মনে করিয়ে দেন যে, “রসআবারোনএক্সপোর্ত” বা রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এখনও এ কথা বলে নি যে, সিরিয়ার সাথে সামরিক-প্রযুক্তিগত সহযোগিতা স্থগিত রাখছে. এর অর্থ, সম্পাদিত চুক্তি অনুযায়ী অস্ত্রের সমস্ত সরবরাহ নির্ধারিত সময়েই করা হচ্ছে. আগে একসারি বিদেশী ও রাশিয়ার প্রচার মাধ্যম হিউম্যান রাইটস ফার্স্ট নামে মানব অধিকার রক্ষা সংস্থার উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছিল যে, তারতুস বন্দরে রাশিয়ার “প্রফেসার কাত্সমান” নামে জাহাজ ভিড়েছে রাশিয়ার অস্ত্র নিয়ে, যা সিরিয়ার কর্তৃপক্ষের জন্য নির্দেশিত, যা বিরোধীপক্ষের বিরুদ্ধে লড়াই চালাচ্ছে.