জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অনুশোচনা প্রকাশ করেছে যে, দক্ষিন কুরিলের ইতুরুপ দ্বীপে বন্দর নির্মাণকাজে অংশগ্রহণ করছে দক্ষিণ করিয়ার একটি নির্মাণ প্রতিষ্ঠান. এই বিষয়ে লেখা হয়েছে মন্ত্রণালয়ের প্রেস সেক্রেটারীর বিবৃতিতে, যা বৃহস্পতিবার “ইতার-তাস্স” সংবাদ সংস্থা পেয়েছে. জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের  বিবৃতি অনুযায়ী, ওই প্রতিষ্ঠান “এমন কাজ করছে যা জাপানের অবস্থানের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়“. বিবৃতিতে বিশেষ ভাবে উল্লেখ করা হয়েছে যে, দক্ষিন কুরিলে অর্থনৈতিক কাজে অন্য দেশের প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণের অর্থ হতে পারে, তারা দক্ষিন কুরিলে রাশিয়ার “প্রশাসনিক অধিকার” স্বীকার করে. আজ “কেউমতো কনস্ট্রাকশন কো” প্রতিষ্ঠান ইতুরুপে আধুনিক ডক নির্মাণ করছে.

এর আগে জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সেউলের কাছে নিজের অসন্তোষ প্রকাশ করেছিল. দক্ষিণ কুরিল বিষয়টি রাশিয়া আর জাপানের মধ্যে ভূখণ্ড সম্পর্কিত মূল বিতর্ক আর দুই দেশের মধ্যে শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরে প্রধান বাধা. ইতুরুপ, কুনাশির, শিকোতান আর হাবোমাই দ্বীপ কাছে দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের ফলাফলের ভিত্তিতে সোভিয়েত ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল.