সিরিয়ায় মীমাংসার আন্তর্জাতিক মধ্যস্থ কোফি আনন দামাস্কাসে বলেন যে, হুলায় বিপর্যয়ের পরে সিরিয়ার সঙ্কট একেবারে “তুঙ্গে” উঠেছে.সিরিয়ার হুলা গ্রামে ব্যাপক হত্যাকাণ্ডের পরে পাশ্চাত্যের একসারি দেশে সিরিয়ার উচ্চপদস্থ কূটনীতিজ্ঞদের দেশে ফেরত্ পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে. দামাস্কাস ঘোষণা করছে যে, এ বিপর্যয় – সন্ত্রাসবাদীদের কাজ, কিন্তু পাশ্চাত্যে এ অপরাধের জন্য সন্দেহ করা হচ্ছে রাষ্ট্রপতি আসদের পক্ষসমর্থকদের. সিরিয়া সম্পর্কে রাষ্ট্রসঙ্ঘ ও আরব রাষ্ট্র লীগের বিশেষ প্রতিনিধি মঙ্গলবার সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি আসদ-কে আহ্বান জানান দেশে হিংসা বন্ধ করার জন্য অবিলম্বে ব্যবস্থা গ্রহণ করার. তাঁর কথায়, সঙ্কট থেকে বের হওয়ার পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য চূড়ান্ত ক্রিয়াকলাপ চালানো উচিত্ “আজ, আগামীকাল নয়”. নিজের তরফ থেকে ফ্রান্সের রাষ্ট্রপতি ওল্লান্ড সিরিয়ায় সামরিক অভিযান চালানোর সম্ভাবনা বাদ দেন না. তিনি উল্লেখ করেন যে, এজন্য, এক বছর আগে লিবিয়ার ক্ষেত্রের মতো রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের যথাযথ ম্যান্ডেট প্রয়োজন, অবশ্যই রাশিয়া ও চীনের সম্মতিতে. একই সঙ্গে ওল্লান্ড বলেন যে, সিরিয়ার ক্ষেত্রে এমন মীমাংসা খুঁজে বার করা দরকার, যা “সামরিক হওয়া বাধ্যতামূলক নয়”. জলাই মাসের গোড়ায় ফ্রান্সে আয়োজিত হবে সিরিয়ার বন্ধুদের পরবর্তী সম্মেলন, দামাস্কাসের উপর চাপ বাড়ানো হবে, বলেন তিনি “ফ্রান্স-২” টেলি-চ্যানেলকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে. হোয়াইট হাউজের প্রতিনিধি জে কারনি হুলা-র ঘটনাবলিকে অভিহিত করেন “আসদ শাসনের পাপের ভয়ঙ্কর সাক্ষ্য” হিসেবে. সেই সঙ্গে তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, সিরিয়ায় সামরিক হস্তক্ষেপ আরও বেশি রক্তক্ষয় ঘটাবে. রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন যে, সিরিয়ায় সামরিক অনুপ্রবেশের প্রয়োজনীয়তার সাফাই গাওয়ার জন্য হুলার বিপর্যয়কর ঘটনাবলি ব্যবহারের চেষ্টায় মস্কো উদ্বিগ্ন. আননের সাথে টেলিফোন আলাপে তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, সিরিয়া সম্পর্কে রাষ্ট্রসঙ্ঘ ও আরব রাষ্ট্র লীগের বিশেষ প্রতিনিধির দ্বারা প্রণীত অনুমোদিত পরিকল্পনার বাস্তবায়ন আরও জরুরী হয়ে উঠেছে.