সিরিয়ার কর্তৃপক্ষ সোমবার রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের কাছে চিঠি পাঠিয়েছে, যাতে হুলা গ্রামে আক্রমণের জন্য দায়িত্ব আরোপ করেছে রাডিক্যাল ইস্লামিক দলগুলির উপর. এ সম্বন্ধে সোমবার জানিয়েছে রয়টার সংবাদ এজেন্সি. আগে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদ জরুরী বৈঠকে নিন্দে করেছে “হুলা গ্রামে আক্রমণের এবং শান্তিপূর্ণ অধিবাসীদের অতি নির্মমভাবে হত্যা করার, সেই সঙ্গে বসতি-পাড়ার উপর সরকারী বাহিনীর আর্টিলারী এবং ট্যাঙ্কের গোলা বর্ষণের”. সিরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, হুলা গ্রামে আক্রমণের সময় হত্যাকারীরা যে ছুরি ব্যবহার করেছে, তা ইস্লামিক জঙ্গীদেরই “স্বাক্ষর”. সিরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, হুলা গ্রামের উপর আক্রমণে অংশগ্রহণ করেছিল কয়েক শো সশস্ত্র সন্ত্রাসবাদী. দামাস্কাস এ তথ্য খন্ডন করেছে যে, আক্রমণের সময় এ অঞ্চলে সিরিয়ার ট্যাঙ্ক বাহিনী ছিল. হুলায় হত্যাকাণ্ড ঘটেছে দামাস্কাসে রাষ্ট্রসঙ্ঘ ও আরব রাষ্ট্র লীগের বিশেষ প্রতিনিধি কোফি আননের সফরের প্রাক্কালে. সোমবার সিরিয়ার রাজধানীতে পৌঁছেই আনন সিরিয়ার সরকারকে আহ্বান জানান হিংসা বন্ধ করার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করতে এবং শান্তিপূর্ণ পথে দেশে সঙ্কট মীমাংসার অভিপ্রায় প্রদর্শন করতে. আনন আরও বলেন যে, সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি বাশার আসদের সাথে “গুরুত্বপূর্ণ ও আন্তরিক আলাপ-আলোচনার” আশা করেন. আশা করা হচ্ছে যে, সিরিয়ার রাষ্ট্রপতির সাথে আননের সাক্ষাত্ হবে মঙ্গলবার. রাশিয়ার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী গেন্নাদি গাতিলোভ বলেন যে, সাম্প্রতিক ঘটনাবলির পটভূমিতে সিরিয়ায় আননের সফর রাজনৈতিক উপায়ে সঙ্ঘর্ষ মীমাংসার সম্ভাবনার প্রমাণ দেয়. আগে গাতিলোভ হুলায় শান্তিপূর্ণ বাসিন্দাদের মৃত্যুর কারণ সম্বন্ধে রাষ্ট্রসঙ্ঘের মিশনের সিদ্ধান্তের অপেক্ষা করার জন্য আহ্বান জানান. রাশিয়া এ সম্ভাবনা বাদ দেয় না যে, শান্তিপূর্ণ অধিবাসীদের ব্যাপক হত্যাকাণ্ড ছিল প্ররোচিত.