সিরিয়ায় কর্মরত পর্যবেক্ষক মিশনের কাজ বিভিন্ন পক্ষের তরফ থেকে চাপ এবং সমালোচনার বিষয় হয়ে দাঁড়াচ্ছে, বলেছেন রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক বান কি মুন. সিরিয়ার হুলা গ্রামে ব্যাপক হত্যার পরে, যেখানে ১০০ জনের উপর এবং প্রায় ৩০০ জন আহত হয়েছে, সিরিয়ায় রাষ্ট্রসঙ্ঘের পর্যবেক্ষকরা ক্রমবর্ধমান সমালোচনার শিকার হচ্ছে. পর্যবেক্ষকদের সমালোচনা করা হচ্ছে এজন্য যে, তারা হিংসা বন্ধ করতে পারছে না, আর কেউ কেউ এমনকি হিংসা বৃদ্ধির জন্য পর্যবেক্ষকদের  দোষ দিচ্ছে, লিখেছেন বান কি মুন রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের কাছে রবিবার পাঠানো চিঠিতে. সাধারণ সম্পাদক উল্লেখ করেন যে, “নিরস্ত্র পর্যবেক্ষকদের ভূমিকা সম্বন্ধে ভুল ধারণা রয়েছে, তারা কি করতে পারে এবং কি নয় সে সম্পর্কে, আর এটা সংশোধন করা কঠিন”. বান কি মুনের কথায়, এটা সিরিয়ায় রাষ্ট্রসঙ্ঘের পর্যবেক্ষকদের উপস্থিতি বিপজ্জনক করে তুলছে. প্রাক্কালে সশস্ত্র বিরোধীপক্ষের তথাকথিত স্বাধীন সিরিয়ার বাহিনীর কয়েকটি ব্রিগেড ঘোষণা করেছে যে হুলায় হত্যাকাণ্ডের পরে তারা অগ্নি সংবরণের ব্যবস্থা মানবে না, যা প্রবর্তিত হয়েছিল রাষ্ট্রসঙ্ঘের বিশেষ প্রতিনিধি কোফি আননের মধ্যস্থতায়. নিজেদের তরফ থেকে, “সিরিয়া বিপ্লবের সাধারণ কমিটি”, যাতে সিরিয়ার বিরোধীপক্ষের স্থানীয় শাখাগুলি অন্তর্ভুক্ত, ঘোষণা করেছে যে, রাষ্ট্রসঙ্ঘের পর্যবেক্ষকদের সিরিয়া ছেড়ে যাওয়া উচিত্ এবং নিজের পক্ষসমর্থকদের আননের মিশনের সাথে সহযোগিতা না করার আহ্বান জানিয়েছে.