রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব দেয়া মন্ত্রীদের নাম ঘোষণা করেছেন. সর্বশেষ মন্ত্রীপরিষদের সাথে তুলনা করলে এবারের তালিকায় তিন-চতুর্থাংশ পরিবর্তন আনা হয়েছে. তবে মন্ত্রীদের নাম ঘোষণার পর বিশেষজ্ঞরা যে বিষয়টি পরিসংহারে তুলে ধরেছেন তা হল, বিশ্ব অর্থনৈতিক পরিস্থিতি বিচার করেই মন্ত্রিপরিষদে রদবদল করা হয়েছে. রুশী বিশেষজ্ঞ ভ্লাদিমীর স্লাতিনোভ মনে করেন, নতুন সরকারের শুধুমাত্র কৌশলগতই নয় বরং রয়েছে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা. তিনি বলেছেন,

    ‘রাষ্ট্রপতি হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব নেওয়ার পরবর্তী ১ ঘন্টার মধ্যেই ভ্লাদিমির পুতিন এই পরিকল্পনার বাস্তবায়ন করার নির্দেশপত্রে সাক্ষর করেছেন. ঐ নির্দেশে সুনির্দিষ্ট করে সরকারের রাজনৈতিক পরিকল্পনার উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য বর্ণনা করা ছিল. যদি সরকারের মন্ত্রিপরিষদ নিয়ে কথা বলা হয় তাহলে বলতে হয়, যাদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে এদের অধিকাংশরই নিজেদের ঝুলিতে এ কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে. মূলত এরা সাবেক সহকারি মন্ত্রী অথবা ব্যাবসায়ী সমাজের প্রতিনিধি যাদের পরিচালনা করার মত কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে’.

    সরকারে ২টি নতুন মন্ত্রীর নাম বলা হয়েছে. তা হচ্ছে- দূরপ্রাচ্য উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রী ও উন্মুক্ত সরকার. কিছু গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীদের রদবদলের ঘটনা     অনেকটা আলোচনাই সৃষ্টি করেছে. সবার শুরুতে যেমন বলা যেতে পারে- জ্বালানী মন্ত্রণালয়. যেহেতু রাশিয়ার অর্থনীতিতে সিংহভাগ এই ক্ষেত্রের সাথে জড়িত এবং দেশের বাজেটের ৪০ ভাগই আসে এখান থেকে. সবার কাছেই এখন পরিষ্কার হয়ে গেছে. এই মন্ত্রণালয়ের আসনের জন্য রীতিমত উঠে পরে নেমেছিল গাজপ্রোম ও রসনেফট, তবে যাকে নির্বাচন করা হয়েছে তিনি এদের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা. তিনি হলেন- আলেক্সান্দার নাভাকা. তিনি অর্থমন্ত্রনালয়ে কাঠামোগত উন্নয়ন বিভাগে কাজ করেছিলেন.

    এছাড়া সবাই পরিচিত হয়েছেন নতুন তার ও যোগাযোগ মন্ত্রী নিকোলাই নিকিফোরোভের সাথে, যার বয়স এখনও ৩০ হয় নি. রাশিয়ার জন্য এর আগে কখনও এমন ঘটনা ঘটে নি. যদিও রাজনীতির জন্য তার বয়স ঠিক ততটা না হলেও তাতারিস্তান সরকারে পরিচালক হিসেবে কাজ করার ৭ বছরের অভিজ্ঞতা তার রয়েছে.

    যদি নতুন সরকারে পুরুষ ও মহিলাদের সংখ্যা বিচার করা হয় তাহলে দেখা যাচ্ছে এবার মহিলাদের সংখ্যা কমে আসছে. ভ্লাদিমির পুতিনের সরকারের সময় তাদের সংখ্যা ছিল ৩ জন এবং দিমিত্রি মেদভেদেভের সরকার ২ জন মহিলা মন্ত্রী রাখা হয়েছে.