মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়া ও চীনকে জানিয়েছে, যে সিরিয়ায় পরিস্থিতি স্বাভাবিকীকরনের ব্যাপারে কোফি আন্ননের প্রয়াস যদি ব্যর্থ হয়, তাহলে ওয়াশিংটন আবার জাতিসংঘের কাছে সিরিয়ার বিরূদ্ধে বাধানিষেধ জারী করার প্রশ্ন তুলবে. ওয়াশিংটনে ব্রিফিংয়ে এই কথা জানিয়েছে বিদেশ দপ্তরের মুখপাত্র ভিক্টোরিয়া নিউল্যান্ড. কোফি আন্ননের পরিকল্পনা মাফিক যদিও সিরিয়ায় শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের বন্দোবস্ত করা হয়েছে, তবুও বিরোধীপক্ষ ও সামরিক বাহিনী নিয়মিত সংঘর্ষ ঘটার কথা জানাচ্ছে. নিউল্যান্ড উল্লেখ করেছে, যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ার উপর চাপ বাড়ানোর অভিপ্রায় গোপন করছে না.

     ২০১১ সালের অক্টোবরে ও চলতি বছরের ফেব্রুয়ারীতে রাশিয়া ও চীন ভেটো দেওয়ার অধিকার প্রয়োগ করে দু-দুবার সিরিয়ার শাসক কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে দেয়নি নিরাপত্তা পরিষদে. তখন মস্কো বলেছিল, যে তারা সিরিয়ার আভ্যন্তরীন সংকটের মীমাংসা করার উদ্ধেশ্যে দামাস্কাসের ওপর একপাক্ষিক আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টির বিরূদ্ধে.

      জাতিসংধের হিসাব অনুযায়ী সিরিয়ায় সংঘাতে ৯ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে. সিরিয়ার শাসককর্তৃপক্ষ ঘোষণা করছে, যে সংঘর্ষে আড়াই হাজারেরও বেশি সেনা ও পুলিশ নিহত হয়েছে, যাদের বিরূদ্ধে আপাদমস্তক প্রশিক্ষিত সশস্ত্র জঙ্গীরা লড়ছে. আর অসামরিক জনসাধারের মধ্যে সংঘর্ষে ম়ত্যুর সংখ্যা নাকি ৩ হাজার ২০০ অতিক্রম করেছে.