আদাব, প্রিয় বন্ধুরা.

আমাদের আজকের সাপ্তাহিক অনুষ্ঠাণে আপনারা জানতে পারবেন –

    মস্কো হালাল এক্সপোয় তিনশোরও বেশি রুশী ও আন্তর্জাতিক কোম্পানী যোগদান করবে.

  কাবার্দিনা-বালকারিয়া প্রজাতন্ত্রের মুখ্য প্রশাসক রাজধানীতে শিক্ষা-সংস্কৃতি কেন্দ্রের নির্মানকার্য পরিদর্শন করেছেন.

   রাশিয়ার মুফতি পরিষদ কেন্দ্রীয় সামাজিক সংস্থা – মুসলিম নারীদের সঙ্ঘ প্রতিষ্ঠাকে সমর্থন জানিয়েছে.

    অতঃপর এবার শুনুন ‘ইসলাম ও মুসলমান ভাইয়েরা’ নামক অনুষ্ঠাণ.

      ৭ থেকে ১০ তারিখ পর্যন্ত রাশিয়ার রাজধানীতে তৃতীয় মস্কো হালাল এক্সপো অনুষ্ঠিত হবে. বর্তমানে রাশিয়ার বাজারে শখানেক হালাল খাদ্যদ্রব্যের বড় উত্পাদনকারী রয়েছে – তাদের দেখার সুযোগ হবে ও তাদের উত্পাদিত খাদ্যদ্রব্যের স্বাদও প্রদর্শনীতে পরখ করা যাবে.

      যদিও প্রদর্শনীটির বয়স মাত্র ৩ বছর, আরব দুনিয়ায় ও ইউরোপে সে সুপরিচিত. প্রদর্শনীর সংগঠক কমিটির সদস্য বেসলান উমারভ বলছেন, যে ইতিমধ্যেই সৌদী আরব, ইরান, তুরস্ক ও সি.আই.এস রাষ্ট্রগুলি প্রদর্শনীতে যোগদান করার কথা ঘোষণা করেছে. আসবে ইসলাম সহযোগিতা সংস্থার প্রতিনিধিরাও, তাদের বিভিন্ন শাখা – সার্টিফিকেট দেওয়া ও বৈজ্ঞানিক গবেষণা করার বিভাগ থেকে. আমরা ইসলামী অর্থ ও হালাল শিল্প শীর্ষক বাণিজ্যিক ফোরামের আয়োজন করবো. আমাদের আশা এই, যে সেখানে ইসলামী অর্থের জনপ্রিয়তাকরনের সমস্যা, ইসলামী আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলির কার্যকলাপের আধুনিকীকরন, ইসলাম সহযোগিতা সংস্থার অন্তর্ভুক্ত দেশগুলিতে হালাল খাদ্যদ্রব্যের বিক্রি, রপ্তানী ও পরিষেবা নিয়ে আলোচনা হবে.

       এবার শুনুন রাশিয়ার মুসলিম সম্প্রদায়ের সংবাদ.

     কাবার্দিনো-বালকারিয়ার মুখ্য প্রশাসক আর্সেন কানোকভ ঐ উত্তর-ককেশাস প্রজাতন্ত্রের রাজধানীতে নির্মীয়মান শিক্ষা-সংস্কৃতি কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন. শরত্কালে যখন পাঠ্যবর্ষ শুরু হবে, তখন ঐ কেন্দ্র চালু করার কথা. ইসলামী কেন্দ্রে থাকবে প্রজাতন্ত্রের ধর্মীয় পরিচালনা সমিতির প্রশাসনিক ভবন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আলাদা ভবন, লাইব্রেরি ও ছাত্রাবাস. ইসলামী সংস্কৃতি, বিজ্ঞান ও শইক্ষা তহবিল এই খাতে ২০ কোটি রুবল মঞ্জুর করেছে. আপাততঃ ভবনগুলির ভেতরে নির্মানকার্য চলছে. ইসলামী কেন্দ্রের নির্মানকার্য শুরু হয় ২০১১ সালের মার্চে স্থানীয় স্থপতি জাউর মাতুয়েভের করা নক্সা অনুযায়ী. ঐ কেন্দ্রের ভেতরে ৫ হাজার প্রার্থনাকারী আঁটতে পারে এরকম মসজিদও বানানো হচ্ছে. মসজিদের মিনারের উচ্চতা হবে ৬৫ মিটার. পরিকল্পনা মাফিক মসজিদটি ২০১৩ সালে খোলার কথা.

        ইসলামী সংস্কৃতি, বিজ্ঞান ও শিক্ষা তহবিলের আর্থিক সহায়তাক্রমে তাতারস্তানের ধর্মীয় পরিচালন সমিতি চতুর্থ বার্ষিক কালিয়াম নামক প্রতিযোগিতা আয়োজন করার কথা ঘোষণা করেছে সাংবাদিকদের জন্য, যারা ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে লেখে. প্রতিযোগিতার মুখ্য উদ্দেশ্য হল – রাশিয়ায় ইসলামী সাংবাদিকতার বিকাশ, অভিজ্ঞতা বিনিময়, ঐ প্রজাতন্ত্রে সংবাদ প্রচার মাধ্যমে নতুন নতুন প্রতিভা খুঁজে বের করা. কয়েকটি ক্যাটাগরিতে পুরস্কার বিতরন করা হবে, - মুসলিম সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে অবদানের জন্য, মুসলমানদের সম্পর্কে সেরা দূরদর্শন প্রোগ্রাম, সেরা মুসলিম ইন্টারনেট-রিসোর্স, মুসলমানদের সম্পর্কে সেরা বেতার অনুষ্ঠাণ প্রভৃতি.

        উত্তর ককেশাসের দাগেস্তান প্রজাতন্ত্রের রাজধানী মাখাচকালার কেন্দ্রীয় মসজিদে ২০ বছর পরে এই প্রথম তথাকথিত প্রথাগত ও প্রথাবহির্ভুত ইসলামের প্রতিনিধিদের সাক্ষাত্কার আয়োজিত হয়েছে. সেখানে ৫০০ জনেরও বেশি লোক যোগ দিয়েছে. দাগেস্তানের মুফতি আহমদ-হাজি আব্দুল্লায়েভ পুরনো সব ক্ষোভ ভুলে গিয়ে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার ও মুসলিম সম্প্রদায়ের সব কর্মকান্ড মিলেমিশে করবার আহ্বাণ জানিয়েছেন. কেন্দ্রীয় মসজিদের ইমামের মতে সালফি ও সুফীদের পারস্পরিক বিদ্বেষ অতিক্রম করতে ঐ সাক্ষাত্কার সাহায্য করবে. সাক্ষাত্কারের শেষে সর্বসম্মত এক ঘোষণাপত্র গৃহীত হয়েছে, যেখানে ৯টি ধারা লিখিত হয়েছে, যার মধ্যে আছে, যে মুসলমানদের একে অপরকে অপবাদ দেওয়া নিষিদ্ধ, অন্যের নামে নালিশ করা নিষিদ্ধ. বিতর্কমুলক প্রশ্নাবলীর মীমাংসা করা হবে আলোচনার মাধ্যমে.

     ভোলগা নদীর তীরবর্তী সারাতভ শহরে শেখ সঈদ নামক মাদ্রাসার সান্ধ্যবিভাগ ও প্রাইভেটে পাশ করা ছাত্রদের ডিগ্রি দেওয়া হল. ২০০৭ সাল থেকে চালু হওয়া ঐ মাদ্রাসায় এই প্রথমবার পাশ করা স্নাতকদের ডিগ্রি দেওয়া হল. মোট ১৯ জন স্নাতকোত্তর ডিগ্রি পেয়েছে ভোলগা উপকূলবর্তী মুসলিম ধর্ম পরিচালন সমিতির প্রধান মুকাদ্দাস-হজরত বিবারসভের হাত থেকে. তাদের অভিনন্দন জানিয়েছে জুনিয়র কোর্সের ছাত্ররা. অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে তারা কোরান পাঠ করেছে.

           মস্কোয় মালয়েশিয়ার রাষ্ট্রদূতাবাসে সাক্ষাত্কারে মিলিত হয়েছিলেন রাশিয়ার মুফতি পরিষদের অর্থনৈতিক বিভাগের প্রধান মদিনা কালিমুল্লিনা ও মস্কো হালাল এক্সপো-২০১২র সংগঠকেরা মুসলিম মহিলা সমিতির প্রতিনিধিদের সাথে. কথা হয়েছে, যে মালয়েশিয়ার মহিলা সমিতি হালাল এক্সপোয় যোগ দেবে এবং প্রদর্শনীর শেষ দিন, ১০ই জুন অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় রান্নার প্রতিযোগিতাতেও অংশ নেবে. রান্না ছাড়াও মহিলা সমিতি প্রদর্শনীতে কাপড় ও রুপোর অলংকার প্রদর্শন করবে.

                রাশিয়ার মুফতি পরিষদ দেশে মুসলিম মহিলা সমিতি গঠন অনুমোদন করেছে. এই নতুন সামাজিক সংস্থা গড়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল সর্বরুশ মুসলমান প্রমীলাদের “মুসলমান নারীরা একবিংশ শতকেঃ সমাজে তাদের ভূমিকা” নামক কংগ্রেসে. ঐ কংগ্রেস সম্প্রতি হয়ে গেল মস্কোয় দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে. উক্ত কংগ্রেসে যোগদান করেছিল রাশিয়ার ৫০টিরও বেশি অঞ্চলের মুসলিম মহিলা প্রতিনিধিরা.

পবিত্র আল্লার দোহায়. অবশ্যই নতুন সংস্থা গড়ার আগে আমরা সব কিছু ভেবে দেখেছি – বলছেন রাশিয়ার মুফতি পরিষদের উপ-সভাপতি রুশান আব্বাসভ. রাশিয়ার কোনো কোনো প্রজাতন্ত্রে ও কয়েকটি জেলায় মহিলা সংগঠন বহুদিন ধরেই চালু আছে, যাদের কারো কারো নেতৃপদে আছে আমাদের মুফতি ও ইমামদের স্ত্রীরা. আমরা দেখেছি তাদের কর্মকান্ড – যেমন, তাতারস্তানের মুসলিম মহিলা সমিতির ক্যাডারদের সক্রিয়তার দৌলতে সরকারী ডকুমেন্টের জন্য মাথায় ওর্ণা দিয়ে ফোটো তোলার অধিকার অর্জন করা গেছে. তাই, গত বছরের নভেম্বরে মহিলারা যখন তাদের সর্বরুশী সংগঠন গড়ার প্রস্তাব উত্থাপন করলো, আমরা শুরার অধিবেশনে একবাক্যে তাদের সমর্থন করেছি. আমরা মনে করি, যে রুশী মুসলিম মহিলা সমিতি বহু কর্তব্যই পালন করতে সক্ষম, যা বর্তমানে মুসলিম ধর্মীয় পরিচালন পরিষদের সামনে হাজির আছে.

     মুসলিম মহিলা সমিতির আওতায় বিভিন্নমুখী কেন্দ্র কাজ করবে. যেমন, পরিবার পালন ও সংরক্ষণ, কর্মনিয়োগ কেন্দ্র, সৈনিকদের মায়েদের সংস্থা প্রভৃতি.

 

    নতুন সমিতির প্রধান কর্তব্য হবে এরকমঃ ধরে নেওয়া হয়, যে মুসলিম মহিলারা অশিক্ষিত, কেমন যেন ব্যক্তিত্বহীন, বাড়িতে বসে শুধু সন্তানপালন করে. রুশান আব্বাসভ বলছেন, যে প্রচুর কাজ করতে হবে, যাতে এই ধরনের ধারনা বদল করা যায়. আমরা সর্বরুশী মুসলিম মহিলা সমিতির সামাজিক প্রকল্পগুলোতে মদত দেব. তাছাড়াও আমাদের আশা এই, যে বিভিন্ন বিদেশী ইসলামী মহিলা সংস্যার সাথেও আমাদের যোগাযোগ স্থাপিত হবে. ইতিমধ্যেই কুয়েত, ইরান, তুরস্ক, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়ার অনুরূপ মুসলিম মহিলা সংগঠণগুলির সাথে সহযোগিতা করার প্রস্তাব এসেছে. আমি মনে করি, যে এই সমিতি গড়ার পরে মহিলারা আমাদের শান্তিতে থাকতে দেবে না, কিন্তু আমরা জেনেশুনেই এই পদক্ষেপ নিয়েছি এবং আমাদের বোনেদের সর্বতোভাবে সহায়তা করতে প্রস্তুত – সবশেষে বললেন রাশিয়ার মুফতি পরিষদের উপ-সভাপতি রুশান আব্বাসভ.

0        প্রিয় বন্ধুরা, ‘ইসলাম ও মুসলমান ভাইয়েরা’ নামক আমাদের সাপ্তাহিক অনুষ্ঠাণ এখানেই শেষ করছি ‘রেডিও রাশিয়া’ থেকে. আল্লাহ আপনাদের মঙ্গল করুন.