ন্যাটো দেশগুলির প্রতিনিধিরা চিকাগো শীর্ষ সাক্ষাতে আফগানিস্তানে সামরিক উপস্থিতি হ্রাস এবং কাবুলকে বার্ষিক ৪১০ কোটি ডলারের আর্থিক সাহায্য দেওয়া সম্পর্কে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরিকল্পনা সমর্থন করেছে. এ সম্বন্ধে “ফ্রান্স প্রেস” সংবাদ সংস্থা জানিয়েছে চিকাগো-তে ন্যাটো জোটের শীর্ষ সাক্ষাতের শেষ ঘোষণাপত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে. একই সঙ্গে, এ সাহায্যের বাজেট  আফগানিস্তানের পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে পুনর্বিবেচিত হবে. ঘোষণাপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে যে, এ আর্থিক সাহায্য চিরকাল দেওয়া হবে না. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরিকল্পনা অনুযায়ী, আফগানিস্তানের কর্তৃপক্ষ পূর্ণ মাত্রায় নিজের নিরাপত্তা বাহিনীর জন্য অর্থের জোগান দিতে পারবে ২০২৪ সাল নাগাদ. রাশিয়া আফগানিস্তানকে সামরিক সহায়তা দেবে, তবে দ্বিপাক্ষিক ভিত্তিতে, চিকাগো-তে বলেছেন আফগানিস্তান সম্বন্ধে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির বিশেষ প্রতিনিধি জামির কাবুলোভ. সাহায্যের সূচক নির্ধারিত হবে কাবুলের সাথে প্রত্যক্ষ পরামর্শের ভিত্তিতে. আন্তর্জাতিক কোয়ালিশনের অংশগ্রহণকারীরাও ২০১৪ সাল শেষ হওয়ার আগে আফগানিস্তান থেকে নিজেদের বাহিনীর অপসারণের পরিকল্পনার কথা আবার জানিয়েছেন. শীর্ষ সাক্ষাতে আলোচিত অন্যান্য বিষয়ের মধ্যে ছিল পাকিস্তানের ভূভাগ হয়ে আফগানিস্তানে ন্যাটো জোটের মালপত্রের ট্রানজিট. এ শীর্ষ সাক্ষাতের জন্য বিশেষ করে আসেন পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি আসিফ আলি জারদারী. তবে, পক্ষদ্বয় চূড়ান্ত সর্বসম্মতি অর্জন করতে পারে নি. জারদারীর সাথে সাক্ষাতের পরে ওবামা, তবে, বলেন যে, “এ প্রশ্নে নির্দিষ্ট অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে”. শীর্ষ সাক্ষাতের একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ছিল ইউরোপে রকেটবিরোধী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার প্রথম পর্যায়ের গঠন শেষ হওয়া সম্বন্ধে জোটের প্রধান সচিব অ্যান্ডের্স ফগ রাসমুসেনের ঘোষণা. ন্যাটো জোট ইউরোপীয় মহাদেশে বিদ্যমান বিমানধ্বংসী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ও রকেটবিরোধী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে ঐক্যবদ্ধ করা শেষ করেছে, যা সুদৃঢ় করা হয়েছে রকেটবিরোধী ব্যবস্থা সম্বলিত মার্কিনী যুদ্ধ-জাহাজের দ্বারা. এ ব্যবস্থা যে রাশিয়ার সংযত রাখার শক্তির বিরুদ্ধে যে নির্দেশিত নয় এ গ্যারান্টি ন্যাটো জোট, আগের মতোই, মস্কোকে দেয় নি.