মার্কিন কংগ্রেসের প্রতিনিধিদের সভা উত্তর কোরিয়াতে মানবাধিকার রক্ষা সংক্রান্ত নির্দেশের সময় সীমা ২০১৭ সাল পর্যন্ত বাড়িয়ে দিয়েছে, এই খবর দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার টেলিভিশন কোম্পানী কেবিসি. এই নির্দেশের সময় সীমা বাড়ানোর জন্য আইন সংক্রান্ত খসড়ায় বলা হয়েছে যে, উত্তর কোরিয়াতে মানবাধিকার পরিস্থিতি কিম চেন ঈন এর ক্ষমতায় আসার পরেও গ্রহণের অযোগ্যই রয়েছে. এই আইনে একই সঙ্গে উত্তর কোরিয়া থেকে চিন দেশে পালিয়ে আসা লোকদের প্রশ্ন নিয়েও কথা রয়েছে. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেই তথ্যের সমালোচনা করা হয়েছে যে, চিনে এই ধরনের লোকদের আবার জোর করে উত্তর কোরিয়াতেই ফেরত পাঠানো হয়ে থাকে, যদিও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ কোরিয়া ও রাষ্ট্রসঙ্ঘের মানবাধিকার রক্ষা পরিষদের হাই কমিশনারের দপ্তর থেকে এটা বন্ধ করতে বলা হয়েছে. এই আইনের খসড়া যেমন রিপাব্লিকান, তেমনই ডেমোক্র্যাটিক দলের লোকরা সমর্থন করেছে. আশা করা হয়েছে যে, সেনেট এই অ্যাক্ট সমর্থন করবে. এর লক্ষ্য হল – উত্তর কোরিয়াতে মানবাধিকার রক্ষা করা, তাদের সাহায্য করা ও সেই দেশে থেকে পালিয়ে আসা লোকদের রক্ষা করা.