আন্তর্জাতিক মধ্যস্থ "ছয় দেশের" ( রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচটি স্থায়ী সদস্য দেশ এবং জার্মানি) প্রতিনিধিরা বাগদাদ সাক্ষাতে ইরানকে একসারি ক্রিয়াকলাপ প্রস্তাব করবে, যার পালন তেহেরানের পারমাণবিক কর্মসূচির শান্তিপূর্ণ চরিত্র সমর্থন করবে. এ সম্বন্ধে “ইউ.এস.এ টুডে” পত্রিকাকে প্রদত্ত ইন্টারভিউতে বলেছেন মার্কিনী কূটনীতির প্রধান হিলারী ক্লিন্টন. মার্কিনী পররাষ্ট্র সচিব জোর দিয়ে বলেন যে, “আমরা বাগদাদ যেতাম না, যদি ইরানের পক্ষ থেকে যথাযথ উত্তরের অপেক্ষা না করতাম”. ক্লিন্টন তাছাড়া জোর দিয়ে বলেন যে, আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সি, নিজের তরফ থেকে, তেহেরানের কাছ থেকে তার কয়েকটি পারমাণবিক প্রকল্পে যাওয়ার অনুমতি পাওয়ার চেষ্টা করছে. তাঁর মতে, এটা “ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি বিকাশের মাত্রা নির্ধারণের জন্য গুরুত্বপূর্ণ”. ইরানের সাথে মধ্যস্থ "ছয় দেশের" পরবর্তী সাক্ষাত্ বাগদাদে ২৩শে মে হবে বলে আশা করা হচ্ছে.