এই বিষয়ে ঘোষণা করেছেন ইন্দোনেশিয়ার পরিবহনের নিরাপত্তা বিষয়ে জাতীয় পরিষদের প্রধান তালাঙ্গ কুর্নিয়াদি. মঙ্গলবারে এই পরিষদ এক বিশেষ কমিশন তৈরী করেছে, যারা এই বিমানের ব্ল্যাক বক্স গুলির তথ্যোদ্ধারের কাজ করবে. তারই মধ্যে, বিমান ভেঙে পড়ার জায়গাতে উদ্ধার ও ত্রাণের কাজ করা চলছে ও এই ব্ল্যাক বক্স গুলির খোঁজ করা হচ্ছে. এর আগে উদ্ধার কর্মীরা বিপর্যয় কালীণ রেডিও সঙ্কেত প্রেরণ যন্ত্র ও বিমানের মিটার ব্যবস্থা খুঁজে পেয়েছিলেন. এই বিমানের দুর্ঘটনা ইন্দোনেশিয়ার জাভা দ্বীপের পশ্চিমে সালাক পাহাড়ের গায়ে ঘটেছে ৯ই মে. এর জন্য নিহত হয়েছেন ৪৫ জন মানুষ. ইন্দোনেশিয়ার সরকার মঙ্গলবারে সরকারি ভাবে স্বীকৃতী দিয়েছে যে, আর কাউকে জীবিত অবস্থায় পাওয়ার আশা নেই.