উত্তর কোরিয়ার ক্রমেই বেশি সংখ্যক অধিবাসী বিদেশী টেলি-চ্যানেল দেখার, বিদেশী রেডিও শোনার এবং বিদেশী চলচ্চিত্র দেখার সুযোগ পাচ্ছে. এ সম্বন্ধে “ইন্টারমেডিয়া” গ্রুপের রিপোর্টের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে বৃটেনের “বি.বি.সি” টেলি-রেডিও কর্পোরেশন. রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, উত্তর কোরিয়ার কর্তৃপক্ষ তথ্যের ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ একচেটিয়া অধিকার ধরে রাখতে পারে নি এবং উত্তর কোরিয়ার লোকেদের “বিশ্ব-জগত্ গ্রহণের অনুভূতি বদলাচ্ছে”. রিপোর্টের রচয়িতারা উল্লেখ করেছেন যে, তার মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় হল ডি.ভি.ডি-তে বিদেশী চলচ্চিত্র, বিশেষ করে দক্ষিণ কোরীয় পরিচালকদের তোলা নাটক. প্রশ্ন করা হয়েছে উত্তর কোরিয়ার ২৫০ জন নাগরিককে, প্রধাণত শরণার্থীদের, এবং তাছাড়া পর্যটক ও বিশেষজ্ঞদের. রিপোর্ট অনুযায়ী, কম্পিউটার এবং জাল মোবাইল টেলিফোন “ক্রমেই বেশি জনপ্রিয়তা অর্জন করছে, বিশেষ করে উপর মহলের মাঝে”. তাছাড়া, উত্তর কোরিয়ার বাসিন্দারা আগের চেয়ে এখন কম মাত্রায় ভয় পাচ্ছে অন্যদের প্রাপ্ত তথ্যের ভাগ দিতে, কিন্তু আগের মতোই সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য নির্বাধ তথ্যের উত্স হল ব্যক্তিগত সম্পর্ক. রিপোর্টের রচয়িতারা তাছাড়া উল্লেখ করেছেন যে, বাইরের তথ্য উত্স প্রাপ্তির প্রসারের ফলে উত্তর কোরিয়ার বাসিন্দারা নিজেদের নেতৃবৃন্দের প্রতি আরও সমালোচনামূলক মনোভাব প্রকাশ করবে.