রাশিয়া ও ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রপতিরা “সুখোই সুপারজেট ১০০” বিমানের দুর্ঘটনার কারণ তদন্ত করায় এবং অনুসন্ধান ও ত্রাণ অভিযান পরিচালনায়মিলিত প্রচেষ্টাচালানো সম্বন্ধে সমঝোতায় এসেছেন. ভ্লাদিমির পুতিনের সাথে টেলিফোনে আলাপ হয়েছে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায়, শুক্রবার জাকার্তায় সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছেন ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রপ্রধান সুসিলো বামবাঙ্গ ইউদোইওনো. রাশিয়ার বিপর্যয় নিরসন মন্ত্রণালয় দুর্ঘটনা-স্থলে পাঠিয়েছে “সেন্ত্রোস্পাস” দলের উদ্ধার-কর্মী ও পর্বতারোহীদের, মনস্তত্ত্ববিদদের এবং অপারেটিভ দলকে. রাশিয়া তাছাড়া হেলিকপ্টারও পাঠিয়েছে, যা অনুসন্ধানী কাজে অংশগ্রহণ করবে. এই “সুপারজেট” বিমানটি রেডারের পর্দা থেকে অদৃশ্য হয়ে যায় ৯ই মে সকাল ৯টায়, জাকার্তায় প্রদর্শনমূলক উড়ানের সময়. তার পরের দিন বিমানের ধ্বংসাবশেষ পাওয়া যায় সালাক পাহাড়ের অঞ্চলে. বিমানটিতে ছিল ৪৫ জন, তার মধ্যে ৮ জন রাশিয়ার নাগরিক.