তুরস্কে ৩০ বছর আগে প্রণীত সংবিধানের বয়ান পরিবর্তনকে কেন্দ্র করে বিতর্ক চলছে, জানিয়েছে পশ্চিমী প্রচার মাধ্যম. নতুন সংবিধানের খসড়া নিয়ে কাজ শুরু করেছে পার্লামেন্ট. এ প্রক্রিয়ায় তাছাড়া আকর্ষণ করার কথা বিভিন্ন সামাজিক সংস্থাকে, ধর্মীয় সম্প্রদায়কে, এবং দেশের সাধারণ নাগরিকদের. বর্তমান সংবিধান, যা বলবত্ হয়েছিল ১৯৮০ সালের রাষ্ট্রীয় অভ্যুত্থানের পরে, গভীর রূপান্তর প্রতিফলিত করে না, যা এ সময়ে তুরস্কে ঘটেছে, উল্লেখ করেছে প্রচার মাধ্যম. এদিকে, তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী রেজেপ তাইপ এর্দোগান বলেছেন যে, নতুন সংবিধান গ্রহণের পরে দেশ রাষ্ট্রপতি শাসিত প্রজাতন্ত্র হয়ে উঠতে পারে. প্রচার মাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, তুরস্কে অনেকেই মনে করেন যে, এ হল শাসন ক্ষমতা হস্তগত করার জন্য বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর চেষ্টা, যিনি ২০১৫ সালে তাঁর ক্ষমতার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরে রাষ্ট্রের নেতৃত্বে থাকতে চান. বিশেষজ্ঞরা অনুমান করেন যে, তুরস্ক যদি রাষ্ট্রপতি শাসিত প্রজাতন্ত্র হয়ে ওঠে, তাহলে রাষ্ট্রনেতার পদ অধিকার করবেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী.