ইন্দোনেশিয়ায় “সুখোই সুপারজেট-১০০” বিমানের দুর্ঘটনার জায়গায় কর্মরত উদ্ধার-কর্মীরা এখনও বেঁচে থাকা কাউকে খুঁজে পায় নি, বৃহস্পতিবার জানিয়েছে স্থানীয় টেলি-চ্যানেল “মেট্রো-টিভি”. কিছুক্ষণ আগে জানানো হয়েছিল যে, ইন্দোনেশিয়ার সামরিক কর্মীরা এ বিমান দুর্ঘটনার জায়গায় নেমেছে এবং নিহতদের দেহাংশ খুঁজে পেয়েছে. এ সম্বন্ধে জানিয়েছেন জাকার্তা বিমানবন্দরে গঠন করা বিপর্যয় কেন্দ্রের প্রতিনিধি. দেহাংশগুলি চিকিত্সা সংস্থায় পাঠানো হবে, যাতে তাদের সনাক্ত করার জন্য ডি.এন.এ বিশ্লেষণ করা যায়. বিমানটি জাকার্তা বিমানবন্দরে প্রদর্শনমূলক উড়ানের সময় ওড়ার ২০ মিনিট পরে রেডার থেকে অদৃশ্য হয়ে যায়. বিমানের ধ্বংসাবশেষ পাওয়া গেছে জাভা দ্বীপের পশ্চিমাংশে সালাক পাহাড়ের ঢালে. বিমানে চিল প্রায় ৫০ জন – পাঁচটি দেশের নাগরিক, তাদের মধ্যে ৮ জন ছিল রাশিয়ার নাগরিক. রাশিয়া ইন্দোনেশিয়ায় দুটি ইল-৭৬ মার্কা উদ্ধারকারী বিমান পাঠাতে প্রস্তুত, যাতে রয়েছে কয়েকটি হেলিকপ্টার, বৃহস্পতিবার জানিয়েছেন রাশিয়ার বিপর্যয় নিরসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি.