মিশরের প্রশাসনিক আদালত রাষ্ট্রপতি নির্বাচন পরিচালনা স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে, যা ২৩-২৪শে মে-র জন্য পরিকল্পিত ছিল. তাছাড়া, সাংবিধানিক আদালতে পার্লামেন্টের দ্বারা গৃহীত রাজনৈতিক অধিকার সংক্রান্ত আইনের সংশোধন পেশ করা হবে. এ সব সংশোধন প্রাক্তন শাসনের উচ্চপদস্থ কর্মীদের শাসন ক্ষমতা থেকে “সরিয়ে রাখবে”. আগে বুধবার কেন্দ্রীয় নির্বাচনী কমিশন ঘোষণা করেছিল যে, দেশের বিধানিক সংস্থার সাথে তার বিরোধ সত্ত্বেও, নির্বাচন নির্ধারিত সময় অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হবে. কয়েক দিন আগে মিশরের পার্লামেন্ট নির্বাচনী কমিশনের কাজের আলোচনা শুরু করে. আর নির্বাচনী কমিশন, নিজের তরফ থেকে, “কমিশনের স্বাধীনতার লঙ্ঘন” হিসেবে তা গ্রহণ করে, এবং সাময়িকভাবে কাজ বন্ধ করে.