মিশরের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী আহমেদ শফিক বুধবার রাষ্ট্রপতি নির্বাচন সংক্রান্ত কমিশনের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছেন, যে কমিশন তাঁকে সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পদের প্রার্থীর তালিকা থেকে বাদ দিয়েছে. এ সম্বন্ধে জানিয়েছে মিশরের “আল-আখ্রাম” পত্রিকা. শফিক-কে প্রার্থীদের তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয় রাজনৈতিক অধিকার সংক্রান্ত আইনের নতুন সংশোধন অনুযায়ী, যাতে প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি হোসনি মুবারকের ঘনিষ্ঠ সহযোগীদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ এবং রাষ্ট্রীয় পদ অধিকার নিষিদ্ধ করা হয়েছে. মিশরের পার্লামেন্টের দ্বারা প্রণীত ও গৃহীত এ সংশোধন বলবত্ হয়েছে মঙ্গলবার মিশরের সশস্ত্র বাহিনীর সর্বোচ্চ পরিষদের অনুমোদনের পরে. শফিক ছিলেন শেষ প্রধানমন্ত্রী, যাঁকে মুবারক নিযুক্ত করেছিলেন অবসর গ্রহণের সামান্য আগে. সংশোধন, বিশেষ করে, সে সমস্ত ব্যক্তির রাজনৈতিক অধিকার বাতিল করে, যাঁরা রাষ্ট্রপতি, উপ-রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী অথবা মুবারকের শাসনের শেষ দশ বছরে জাতীয়-গণতান্ত্রিক পার্টির উচ্চপদস্থ পরিচালকের পদে আসীন ছিলেন. শফিকের মতে, রাজনৈতিক অধিকার সংক্রান্ত আইনের সংশোধন দেশের সংবিধান লঙ্ঘন করে, আর তাই রাষ্ট্রপতি পদের প্রার্থীদের তালিকা থেকে তাঁর নাম দেওয়া পুনর্বিবেচনা করা উচিত্. মিশরের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রথম রাউন্ড, আশা করা হচ্ছে, অনুষ্ঠিত হবে ২৩শে-২৪শে মে.