মিশরের সশস্ত্র বাহিনীর সর্বোচ্চ পরিষদ সোমবার সন্ধ্যায় রাজনৈতিক অধিকার সংক্রান্ত আইনে সংশোধন অনুমোদন করেছে. মিশরের আল-আখ্রাম পত্রিকা জানিয়েছে যে এখন আইন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি হোসনি মুবারকের ঘনিষ্ঠ সহযোগীদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা এবং রাষ্ট্রীয় পদ অধিকার করা নিষেধ করে. আগে এ সংশোধন অনুমোদন করেন গণ সভার (মিশরের পার্লামেন্টের নিম্ন কক্ষের) প্রতিনিধিরা, যেখানে ইস্লামিস্টদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে. এ সংশোধন অনুযায়ী, বিশেষ করে, মুবারকের শাসনের শেষ দশ বছরে রাষ্ট্রপতি, উপ-রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী অথবা ক্ষমতাসীন জাতীয়-গণতান্ত্রিক পার্টির উচ্চপদস্থ নেতাদের সকলের রাজনৈতিক অধিকার বাতিল করা হচ্ছে. প্রথম থেকেই এ আইন নির্দেশিত ছিল প্রাক্তন উপ-রাষ্ট্রপতি ওমর সুলেইমানের বিরুদ্ধে, যিনি রাষ্ট্রপতির নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে নিজের নাম প্রস্তাব করেন. তবে, তাঁর সমর্থনে স্বাক্ষর সংগ্রহে সমস্যার জন্য তাঁর নাম প্রাক-নির্বাচনী অভিযান থেকে বাদ দেওয়া হয়েছিল. এখন উক্ত সংশোধন ব্যবহৃত হতে পারে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী আহমেদ শফিকের বিরুদ্ধে, যিনি সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পদের জন্য সংগ্রাম করছেন. তবে, তাঁ অধিকার আছে সাংবিধানিক আদালতে এ সব সংশোধনের বিরুদ্ধে আপীল করার. কিন্তু তার ফলে নির্বাচনের সময় বদলাতে পারে. আশা করা হচ্ছে যে,  মিশরের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রথম রাউন্ড অনুষ্ঠিত হবে ২৩শে-২৪শে মে.