বাহরিনের রাজধানীতে আবার প্রতিবাদী মিছিলকারীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে গতকাল. প্রত্যক্ষদর্শীদের উদ্ধৃতি দিয়ে রয়টার সংবাদসংস্থা জানাচ্ছে, যে সংঘর্ষ শুরু হয় গত শুক্রবারে নিহত আন্দোলনকারীদের শেষকৃত্য সম্পন্ন হওয়ার পরেই. ৩০ বছর বয়সী আন্দোলনকারী সালেহ আব্বাস হাবিবকে যেখানে কবর দেওয়া হয়েছে, সেই এলাকায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীরা পুলিশদের দিকে লক্ষ্য করে পাথর ও মলোটভ ককটেলের বোতল ছুঁড়তে শুরু করেছিল. প্রত্যুত্তরে পুলিশরা কাঁদানে গ্যাস ও গ্রেনেড ব্যবহার করেছে. হতাহতদের সংখ্যা সম্পর্কে এখনো কোনো খবর নেই. খবরে প্রকাশ, যে মানামা থেকে ১২ কি.মি. দূরত্বে শাকুরা নামক গ্রামে সালেহ আব্বাসের মৃতদেহ খুঁজে পাওয়া যায় শুক্রবার পুলিশ বাহিনী আন্দোলনকারীদের মিছিল ছত্রভঙ্গ করার পরের দিন.

   বাহরিনে গণ আন্দোলন শুরু হয় ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে. আন্দোলনে অংশ নিচ্ছে মুলতঃ শিয়া সম্প্রদায়ভুক্ত মুসলমান বিরোধীরা, যারা দেশের জনসংখ্যার ৭৫%. তারা স্বদেশে তাদের অধিকার সম্প্রসারিত করার দাবী জানাচ্ছে, যেখানে সুন্নী সংখ্যালঘু শাসন ক্ষমতায় আসীন আছে.