আফগানিস্তান আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দীর্ঘ প্রতীক্ষিত রণনৈতিক শরিকানার  চুক্তি প্রণয়ন করেছে. এই বিষয়ে আফগানিস্তানের রাষ্ট্রপতি হামিদ কার্জাইয়ের প্রশাসনের প্রতিনিধি জানিয়েছেন. এই চুক্তি উভয় দেশের রাষ্ট্রপতিদের দ্বারা অনুমোদিত হওয়া উচিত.

 প্রশাসনের খবরে ঘষণায় বলা হয় নি, ওয়াশিংটন কাবুলের এই সপ্তাহের শর্ত নিয়েছে কিনা. চুক্তি স্বাক্ষর করার শর্ত ছিল আফগানিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনীর জন্য প্রতি বছর শত শত কোটি ডলার দেওয়া. আফগানিস্তানের নেতা জোর দেন, চুক্তিতে যেন অর্থের সুনির্দিষ্ট পরিমাণ লেখা হয়. কার্জায়ের এমন অবস্থানে আফগানিস্তানের জনগণের ভয় প্রতিফলিত হচ্ছে যে, মার্কিন সৈন্য বাহিনীর অপসারণের পর আফগানিস্তানের জনগণের প্রতি ওয়াশিংটন নিজের বাধ্যবাধকতা ভুলে যাবে.