২০১৪ সালে অনুষ্ঠিতব্য শ্বেত অলিম্পিকের সময় সোচি শহর ইংরাজীতে কথা বলবে. শহর কর্তৃপক্ষের পরিকল্পনা মাফিক, অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠাণ নাগাদ সোচির বাসিন্দারা অন্ততঃ ৬০০ ইংরাজী শব্দ মুখস্ত করবে, এবং কথ্য ইংরাজী শিখতে সক্ষম হবে, যাতে স্পোর্টসম্যান ও অলিম্পিকের অতিথিদের অসুবিধা না হয়.

        সোচিতে তথ্য ও শিক্ষামুলক প্রকল্প চালু হয়েছে, যার নাম ‘দিনের কথা’. প্রকল্পটি ২০১৪ সালে অলিম্পিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শুরু হওয়া পর্যন্ত চলবে. এই গোটা সময়টায় শহরের যানবাহনে, মিউজিয়ামগুলিতে, গ্রন্থালয়গুলিতে, হাসপাতালে রুশী অনুবাদ সহ ইংরাজী শব্দ ও বয়ান টানানো থাকবে. প্রত্যেক দিন সেগুলো বদল করা হবে. প্রকল্পটির বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে প্রথম শব্দ দিয়ে – ওয়েলকাম(স্বাগতম). 

    প্রকল্পটির সমন্বয় সাধনকারিনী ইলেনা সিগারিওভা বলছেন – যে ‘দিনের কথা’ সংকলন করেছে সোচিতে অবস্থিত রুশী আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাষাবিদ্যা ফ্যাকালটির কর্মীরা. শিক্ষাপদ্ধতি ও কোর্স, ইংরাজী যাদের মাতৃভাষা, তাদের দ্বারা ঝালিয়ে নেওয়া হয়েছে. আন্তর্জাতিক স্তরের অধ্যাপক ট্রেসি সিনক্লেয়ার প্রকল্পটির অতি উচুঁ মূল্যায়ন করেছেন. ভাষার বয়ান বাস্তবিক ও পুরোপুরি শুদ্ধ. কোর্সটা পুরো পড়ে দেখেছেন জন পার্সন, যার মাতৃভাষা ইংরাজী এবং রাশিয়ায় ইংরাজী ভাষাশিক্ষার কোর্স সংকলনের ব্যাপারে তিনি সুবিদিত. সোচি শহরের শিক্ষা ও বিজ্ঞান পরিচালন দপ্তরের প্রধান ওলগা মেদভেদেভা বলছেন, প্রকল্পটি খুব একটা দামী নয়, কারণ ওটা বাস্তবায়িত করেছে স্বেচ্ছাসেবকরা.

   শিক্ষাকেন্দ্রগুলিতে ইংরাজী ভাষা শিক্ষাদানও চলছে স্বেচ্ছামুলক ভিত্তিতে. আমাদের আশা এই, যে লোকজন শহরের বিভিন্ন শিক্ষাকেন্দ্রে ভাষাশিক্ষা চালিয়ে যাবে. তারপরে আমাদের সহকর্মীদের ও সোচির উচ্চশিক্ষার্থীদের মতামত সংগ্রহ করে আমাদের দপ্তরের ওয়েব-সাইটে ঝোলানো হবে. তাতে প্রকল্পটির সাফল্যের মাত্রা বোঝা যাবে. বোঝা যাবে আগ্রহ বেড়েছে কিনা, আমাদের কথা লোকে শোনে কিনা, আমাদের সাথে সাথে ইংরাজী শব্দাবলী পুণরাবৃত্তি করে কিনা.

          ২০১৪ সালে শ্বেত অলিম্পিকের উদ্বোধণী অনুষ্ঠাণ হবে ৭ই ফেব্রুয়ারী. শ্বেত অলিম্পিক শেষ হওয়ার পরে পরেই সোচিতে প্রতিবন্ধীদের জন্য প্যারা অলিম্পিকস আয়োজিত হবে. দীর্ঘপ্রতীক্ষিত উত্সবের প্রস্তুতি চলছে পুরোদমে. সংগঠকেরা সর্বতোভাবে চেষ্টা করছেন, যাতে সোচি অলিম্পিক নজীরবিহীন হয়.