স্বরাষ্ট্র নিরাপত্তা মন্ত্রক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ এখন থেকে ইউরোপ মহাদেশের সমস্ত জনতা, যারাই আমেরিকায় আসবেন, তাদের সম্বন্ধে খবর রাখতে পারবে, এই রকমের এক সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউরো পার্লামেন্ট, জানিয়েছে বিবিসি সংস্থা. সেই মন্ত্রক এখন থেকে এমন রকমের তথ্য পাবেন, যেখানে লোকের পাসপোর্টের সমস্ত তথ্য ছাড়াও থাকবে, বর্তমান ঠিকানা, সমস্ত ক্রেডিট কার্ড ও ফোনের নম্বর, তা ছাড়া এমনকি কোন প্রজাতির লোক, তার খাদ্যাভ্যাস, ব্যক্তিগত জীবনের গোপনীয় তথ্য সমস্ত কিছুই. এই তথ্য জমা থাকবে প্রথমে পাঁচ বছর প্রত্যেকের আমেরিকার উদ্দেশ্য বিমানে চড়ার পর থেকে ও তারপরে আরও দশ বছর ধরে তা আবার অন্য এক নিষ্ক্রিয় তথ্য ভান্ডারে জমা রাখা হবে. সমস্ত বিমান পরিবহন কোম্পানী, যারা ইউরোপীয় সঙ্ঘের ২৭টি সদস্য দেশ ও আমেরিকার মধ্যে বিমান যাত্রা করে থাকে, তাদের সকলের জন্যই এই শর্ত আবশ্যক করা হয়েছে. প্রশ্ন হল, সমস্ত মার্কিন নাগরিক ও গুপ্তচরদের খবর ইউরোপ আগে থেকে জানতে পারবে কি না, তা অবশ্য এই দলিলে বলা হয় নি.