রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের পূর্বে ভ্লাদিমির পুতিনের প্রস্তাব গুলি সুনির্দিষ্ট আকার নিতে শুরু করেছে. “ঐক্যবদ্ধ রাশিয়া” দল এক “দিক নির্দেশ” তৈরী করেছে দেশের উন্নতি কল্পে, যা পুতিনের উদ্যোগকে, যে সমস্ত বিষয়ে তিনি রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের সময়ে বলেছিলেন, সেগুলিকে ভিত্তি করে করা হয়েছে.

    “দিক নির্দেশ” তৈরী করার ভিত্তি হয়েছে সেই সমস্ত পরিকল্পনা মূলক প্রবন্ধ গুলি, যা কার্যকরী মুখ্য মন্ত্রী প্রাক্ নির্বাচনী পর্যায়ে প্রকাশ করেছিলেন. সেই গুলি বিশেষ করে লেখা হয়েছিল রাশিয়ার আভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা রক্ষা নিয়ে, আন্তর্জাতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক রাজনীতি নিয়ে, গণতন্ত্রের উন্নতি ও আন্তর্প্রজাতি সম্পর্ক নিয়ে. নির্বাচনের আগে ভ্লাদিমির পুতিন ঘোষণা করেছিলেন যে, তাঁর প্রবন্ধ কোনও নির্বাচনী পূর্ব বক্তৃতা নয়, বরং কাজ করার জন্য নির্দিষ্ট পরিকল্পনা, যার ভিত্তি উপরে দাঁড়িয়ে দেশের প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের জন্য তৈরী করা হচ্ছে সরাসরি নির্দেশ, রাষ্ট্রীয় ও আঞ্চলিক পরিকল্পনা.

    ভ্লাদিমির পুতিনের প্রাক্ নির্বাচনী প্রস্তাব গুলির কয়েকটি বাস্তবায়নের দিক নিয়ে “রেডিও রাশিয়াকে” ব্যাখ্যা করে প্স্কোভ অঞ্চলের উপ রাজ্যপাল দেনিস ক্রাভচেঙ্কো বলেছেন:

    “একটি আইনের খসড়া তৈরী করা হয়েছে, যা দেশের প্রতিযোগিতা সক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে. খুবই শক্তিশালী দলিল. আমরা আশা করছি যে, সেটি গৃহীত হলে তা বর্তমানের পরিস্থিতিকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভাবে পরিবর্তিত করবে ও তা অর্থনীতিতে প্রতিযোগিতার উন্নতি করবে. খুবই গুরুত্বপূর্ণ অংশ – স্থানীয় স্বায়ত্ত শাসন ও ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ. কিছু আইন সংশোধনের প্রস্তাব করা হয়েছে, যার ফলে বেশ কিছু কর সংগ্রহের বিষয়, যা ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসার কাছ থেকে জমা করা হয়ে থাকে, তা পৌর সভার স্তরেই থেকে যাবে. খুবই গুরুতর ভাবে রাজনৈতিক ব্যবস্থায় বদল ঘটানো হচ্ছে. এটা যেমন বহু রাজনৈতিক দলের উপস্থিতি, লোকসভা নির্বাচন ও রাজ্য পাল নির্বাচন নিয়ে করা হয়েছে. একই সঙ্গে তৈরী করা হয়েছে জাতীয় রাজনীতি নিয়ে বেশ কয়েকটি উদ্যোগ. বিতর্ক চলছে এই ক্ষেত্রে বিশেষ দপ্তর সৃষ্টি নিয়ে. খুবই শক্তিশালী সামাজিক উন্নতির বিষয়ে পরিকল্পনা তৈরী করা হয়েছে”.

    “দিক নির্দেশ” পরিকল্পনাতে বলা হয়েছে ২৫০ লক্ষ নতুন উচ্চ প্রযুক্তি নির্ভর কর্ম সংস্থানের কথা, বেতন বৃদ্ধি, পেনশন ও অন্যান্য সামাজিক সহায়তার কথা. একই সঙ্গে সেখানে কথা হয়েছে অভিবাসন নীতি ও প্রশাসনের কর্মচারী সংক্রান্ত পরিমার্জনের কথা.

    সারা রাশিয়া সামাজিক মতামত গবেষণা কেন্দ্রের এক সমীক্ষা অনুযায়ী বেশীর ভাগ রাশিয়ার লোকই ভ্লাদিমির পুতিনের উদ্যোগকে সমর্থন করেন. এই কথা ঠিক যে, এই গুলি করতে হলে তা ব্যয় সাপেক্ষ হবে. অর্থনীতিবিদরা হিসাব করে দেখেছেন যে, শুধু এই দিক নির্দেশের সামাজিক অংশ করতেই খুব কম করে হলেও কুড়ি হাজার কোটি ডলার ছয় বছরের মধ্যে প্রয়োজন হবে. কিন্তু “ঐক্যবদ্ধ রাশিয়া” দল ঘোষণা করেছে যে, এর ফলে দেশের গড় বার্ষিক উত্পাদনের ব্যয় বরাদ্দ অংশে মাত্র শতকরা দেড় থেকে দুই শতাংশ বৃদ্ধি করলেই হবে. আর ভ্লাদিমির পুতিনের গত নির্বাচনের প্রতিদ্বন্দ্বীদের দেওয়া আশ্বাস প্রত্যেকের জন্যই আলাদা করে বাস্তবায়িত করতে হলে অনেক বেশী খরচ করতে হত.