রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের দ্বারা উত্তর কোরিয়ার মহাকাশ কর্মসূচির নিন্দে সত্ত্বেও উত্তর কোরিয়া কক্ষপথে স্পুতনিক পাঠানোর উদ্দেশ্যে রকেট-মহাকাশ প্রকৌশলের বিকাশ চালিয়ে যাওয়ার অভিপ্রায়ের কথা ঘোষণা করেছে. এ সম্বন্ধে বলা হয়েছে উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধির বিবৃতিতে, যা মঙ্গলবার প্রচার করেছে “কোরিয়ার কেন্দ্রীয় টেলিগ্রাফ এজেন্সি”. পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধির কথায়, রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্ত “স্পুতনিক ক্ষেপণে প্রত্যেক দেশের অধিকার লঙ্ঘন করে”. তিনি আরো জানান যে, পিয়ংইয়ং ২০১২ সালের ২৯শে ফেব্রুয়ারী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে রকেট ও পারমাণবিক পরীক্ষায় স্থগিতাদেশের বদলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে উত্তর কোরিয়ায় খাদ্যদ্রব্য সরবরাহ সংক্রান্ত চুক্তির বাধ্যবাধকতা পালন করতে অস্বীকার করছে. এবারের রকেট ক্ষেপণের পরে ওয়াশিংটন ঘোষণা করে যে, পিয়ং ইয়ংকে খাদ্য সরবরাহ বন্ধ করবে. এর প্রাক্কালে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতি স্যুজান রাইস উত্তর কোরিয়ার রকেট ক্ষেপণের কঠোর নিন্দে করেন. উত্তর কোরিয়া ১৩ই এপ্রিল আবহ স্পুতনিক সম্বলিত রকেট ক্ষেপণ করেছিল. রকেটটি আকাশে ছিল প্রায় ২ মিনিট, তার পরে তা দক্ষিণ কোরিয়ার পশ্চিম উপকূল থেকে প্রায় ২০০ কিলোমিটার দূরে সমুদ্রে গিয়ে পড়ে. সরকারী পিয়ং ইয়ং স্বীকার করেছে যে, এ স্পুতনিক ক্ষেপণ বিফল হয়েছে.