ইউনেস্কোর বিশ্বব্যাপী সম্পদের তালিকায় আরও একটি দ্রষ্টব্য স্থান অন্তর্ভুক্ত হতে পারে . এবার সেই স্থানটি হতে পারে বাশকিরিয়ার নজীরবিহীন প্রাকৃতিক স্মারক – শুলগান - তাশ গুহা . গুহাটির জন্য এটা শুধুমাত্র আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ার সম্ভাবনাই নয়, আরও বাড়তি অর্থপ্রাপ্তি এবং বিশেষ আন্তর্জাতিক পরিসরে সংরক্ষনের ব্যবস্থা . বাশকোরতাস্তানের প্রশাসকদের আশা, যে এই ঘটনা গুহা এবং গোটা প্রজাতন্ত্রের প্রতিই পর্যটকদের মনোযোগ আরও বেশি করে আকর্ষণ করবে .

শুলগান - তাশ – বাশকোরতাস্তানের অন্যতম বৃহত্তম ও সুদৃশ্য গুহ . বাশকিরিয়ায় অবস্থিত সব গুহার মধ্যে উক্ত গুহাটি দৈর্ঘ্যের দিক থেকে ৫ম ও গভীরতার দিক থেকে ২য় স্থান অধিকার করে . গুহার যে দৈর্ঘ্য অধ্যয়ন করা হয়েছে, তা প্রায় ৩ কিলোমিটার . গুহার প্রবেশদ্বার প্রায় ৩০ মিটার উচ্চতার তোরণ . তোরণের কাছেই একটি হৃদ, যেখান থেকে শুলগান নদীর উত্পত্তি হয়েছে . ঐ হৃদের জল বিভিন্ন রাসায়নিক পদার্থের উপস্থিতির জন্য পানীয়যোগ্য নয়, কিন্তু চিকিত্সার জন্য স্নানের সময় ব্যবহার করা হয়ে থাকে .

গুহাটির খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে তার গুহাচিত্রের দৌলতে, যার বয়স প্রায় ১৭ হাজার বছর . তেজস্ক্রিয় কার্বন বিশ্লেষণ গুহাটির বয়সের সত্যতা প্রমাণ করেছে . ইতিপূর্বে অনুরূপ গুহা শুধুমাত্র স্পেন ও ফ্রান্সেই আবিস্কৃত হয়েছিল .

গুহাচিত্রগুলির মধ্যে অধিকাংশই বিমুর্ত সব চিহ্ন ও দুরূহ সব রঙীন দাগ . এসব চিত্রগুলি ধ্বংস হওয়ার কালের ফসল . তবে জীবজন্তুর চিত্রও সেখানে অনেক . তাদের মধ্যে হাতি ও ঘোড়ার ছবি সবচেয়ে বেশি, তবে অন্যান্য জীবজন্তুর ছবিও আছে . ছবিগুলি মুলতঃ পশুদের চর্বি দিয়ে বানানো টেরাকোটা রঙের . তবে কদাচিত কয়লা দিয়ে আঁকা ছবিও দেখতে পাওয়া যায় . গুহার ভেতরে চিত্রাবলী বিভিন্ন মাত্রায় সংরক্ষিত রয়েছে . তাদের একাংশ ক্যালসিয়ামের প্রলেপের নীচে আত্মগোপন করে রক্ষা পেযেছে, অন্যগুলি দেওয়াল দিয়ে বয়ে চলা জলের ধারায় ধীরে ধীরে মুছে যাচ্ছে .

শুলগান - তাশ গুহার আভ্যন্নরীন আবহাওয়া বেনজির . সেখানে তাপমাত্রা সারাবছর জুড়ে ৫ - ৭ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড আর আর্দ্রতা ১০০ %. বয়সের দিক থেকে গুহাটিকে প্রাচীনতম বলে মনে করা হয় . ভূতত্ত্ববিদদের মতে, ঐ গুহার গঠণ শুরু হয়েছিল ৩০ - ৫০ লক্ষ বছর আগে .

বর্তমানে রাশিয়ায় সর্বমোট ২১টি সাংস্কৃতিক স্মারক স্থান আছে ইউনেস্কোর তত্ত্বাবধানে . তাদের মধ্যে মস্কোর ক্রেমলিন, সেন্ট - পিটার্সবার্গের কেন্দ্রস্থল, কাজানের ক্রেমলিন, কোমি প্রজাতন্ত্রের বনাঞ্চল, আলতাইয়ের পাহাড়সারি . খুব শীঘ্রই এই তালিকায় যোগ হবে আরও একটা দ্রষ্টব্য স্থান – বাশকিরিয়ার প্রাকৃতিক দ্রষ্টব্য স্থান – শুলগান তাশ গুহা .