তেহেরান কায়রো-কে বিভিন্ন ধারায় অর্থনৈতিক সাহায্য দিতে প্রস্তুত, সেই সঙ্গে পারমাণবিক প্রকৌশল হস্তান্তরের ক্ষেত্রেও. এ সম্বন্ধে জানিয়েছে মিশরের প্রচার মাধ্যম ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলি সালেহি-র বিবৃতির উদ্ধৃতি দিয়ে. তাঁর কথায়, তেহেরান তাছাড়া মিশরী পক্ষকে “আন্তর্জাতিক পারমাণবিক শক্তি এজেন্সির দ্বারা অনুমোদিত কাঠামোতে পারমাণবিক জ্বালানী” সরবরাহ করতেও পারে. ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অর্থনীতি, বাণিজ্য, প্রকৌশল বিনিময় ইত্যাদি সমস্ত ক্ষেত্রে কায়রোর সাথে সম্পর্ক বিকাশের পক্ষে মত প্রকাশ করেন. সালেহি-র মতে, ইরান-মিশরী সহযোগিতার বর্তমান মান উভয় দেশের চাহিদা এবং কর্তব্যের সাথে একেবারেই সুসঙ্গত নয়. একই সঙ্গে, তিনি সদর্থক গতির কথা উল্লেখ করেন, এ কথা বলে যে, শুধু বিগত কয়েক মাসে তেহেরান সফর করেছে মিশরের পাঁচটি উচ্চপদস্থ প্রতিনিধিদল. সালেহি তাছাড়া রাষ্ট্রদূতের পর্যায়ে ইরান ও মিশরের মাঝে কূটনৈতিক সম্পর্ক পুনর্স্থাপনের পক্ষে মত প্রকাশ করেন. দু দেশের মাঝে সম্পর্ক ছিন্ন হয়েছিল মিশরের দ্বারা ১৯৭৮ সালে ইস্রাইলের সাথে শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরের পরে. ২০১১ সালে মিশরে বিপ্লবের পরে তেহেরান পূর্ণ পরিসরের কূটনৈতিক সম্পর্ক পুনর্স্থাপনের জন্য একনিষ্ঠভাবে চেষ্টা করে যাচ্ছে.