“জি-৮” গোষ্ঠীর সদস্য দেশগুলি, ওয়াশিংটনে মন্ত্রী-পর্যায়ের সাক্ষাতের ফলাফলের ভিত্তিতে গৃহীত ঘোষণাপত্রে বলা হয়েছে যে, তথাকথিত “আরব্য বসন্তের” গতিতে সরকারের বদল হওয়া নিকট প্রাচ্য ও কেন্দ্রীয় এশিয়ার দেশগুলিকে সমর্থন করার প্রতিশ্রুতির কথা আবার জানিয়েছে. ঘোষণাপত্রে বলা হয়েছে যে, “জি-৮” দেশগুলির পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা এ সব দেশে প্রতিবাদ আন্দোলনের ফলে দেখা দেওয়া নতুন গণতন্ত্রগুলির প্রতি এবং রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সংস্কার সাধন-রত দেশগুলির প্রতি সমর্থনের কথা পুনরায় জানাচ্ছে. মন্ত্রীদের স্থিরবিশ্বাস যে, এ অঞ্চলে যে সব ঘটনা ঘটেছে তা এ অঞ্চলে গণতন্ত্র, স্থিতিশীলতা ও স্বচ্ছতা সুদৃঢ় করবে. “আরব্য বসন্ত” বলা হয় নিকট প্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকার দেশগুলির গণ-আন্দোলনকে, যা দেখা দিয়েছিল ২০১০ সালের ১৭ই ডিসেম্বর টিউনিশিয়ার তরুণ ব্যবসায়ী মুহাম্মেদ আল-বুয়াজিজির মৃত্যুর পরে, যে স্থানীয় কর্তৃপক্ষের স্বেচ্ছাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ স্বরূপ নিজের গায়ে আগুন লাগিয়ে পুড়ে মরেছিল. গণ-আন্দোলন সঙ্গে সঙ্গে ছড়িয়ে পড়ে এ অঞ্চলের কয়েকটি দেশে এবং ফলে টিউনিশিয়া, মিশর, লিবিয়া ও ইয়েমেনের নেতারা ক্ষমতাচ্যুত হন, যাঁরা কয়েক দশক ধরে দেশ শাসন করেন. তাছাড়া, প্রতিবাদ আন্দোলন অন্য একসারি দেশে পরিস্থিতি তীব্র করে তোলে, সর্বপ্রথমে সিরিয়ায়.