মস্কো ২০১২ সালে “জাপানের পররাষ্ট্র নীতি সংক্রান্ত নীল গ্রন্থের” প্রকাশ সদর্থক হিসেবে গ্রহণ করেছে, যাতে রাশিয়ার সাথে সম্পর্কের আরও বিকাশের মনোভাব নিরূপিত হয়েছে. এ সম্বন্ধে সোমবার সন্ধ্যায় ঘোষণা করা হয়েছে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে. রাশিয়ায় এ বিষয়ে একমত প্রকাশিত হচ্ছে যে, “রুশ-জাপ সম্পর্কের অগ্রগতি শুধু উভয় রাষ্ট্রের স্ট্র্যাটেজিক স্বার্থের সাথে সুসঙ্গত হবে না, তা এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের স্থিতিশীলতা ও প্রস্ফুরণেও সাহায্য করবে”, বলা হয়েছে খবরে. রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সসন্তোষে উল্লেখ করেছে বিগত বছরে “রুশ-জাপ সম্পর্কের উন্নতির এবং দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা সমাহারিকভাবে সক্রিয় হওয়ার” কথা. মস্কো টোকিওর সাথে সম্পর্কের আরও প্রসারে প্রস্তুত. রাশিয়া মুখ্য ধারা হিসেবে দেখে রাজনৈতিক সংলাপের গভীরতা সাধনে, অর্থনৈতিক সহযোগিতা সক্রিয় করায়, এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার প্রশ্নে দু দেশের মাঝে সমন্বয় বৃদ্ধিতে. বিবৃতিতে দু দেশের মাঝে অ-সমাধিত ভূভাগীয় বিতর্ক সম্বন্ধে সোজাসুজি বলা হয় নি. একই সঙ্গে রাশিয়া আশা করে যে, জাপানের সাথে শরিকানার সম্পর্ক গড়ে তোলা “দ্বিপাক্ষিক আলোচ্য সূচিতে অ-সমাধিত প্রশ্নে সংলাপের জন্য অনুকূল পটভূমি সৃষ্টি করবে”, যার কথা “নীল গ্রন্থে” উল্লেখ করা হয়েছে, বলা হয়েছে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে.