রাশিয়ার রাজধানীতে সিরিয়ার বিরোধী পক্ষের আরও একটি প্রতিনিধি দলের আগমনের অপেক্ষা করা হচ্ছে. এই সফরের আগে রাশিয়ার পররাষ্ট্র দপ্তরের উপ প্রধান মিখাইল বগদানভ রেডিও রাশিয়ার সাংবাদিকদের সিরিয়ার বিরোধী পক্ষের সঙ্গে মস্কোর যোগাযোগ নিয়ে কথা বলেছেন:

    “এখন সিরিয়ার বিরোধী পক্ষ বিভিন্ন জায়গায় ঘাঁটি গেড়েছে – তা যেমন সিরিয়ার ভিতরে, তেমনই বাইরের দেশেও. সিরিয়ার বিরোধী পক্ষ – খুবই খণ্ডিত. তার ওপরে এই বিরোধী পক্ষের মধ্যে টুকরো হয়ে যাওয়া চলছে, আরও বেশী করে নানা রকমের সংগঠন তৈরী হচ্ছে. কেউ হয়তো আশা করেছিল যে, হতে পারে, তাদের ঐক্যবদ্ধ করা যাবে কোনও সম্মিলিত কাঠামোয় – কিন্তু তা হয়ে উঠছে না. বিরোধী পক্ষের কোনও সর্ব সম্মত নেতা নেই, নেই কোনও সকলের পরিকল্পনা.

    খুবই বেশী হয়েছে এখন অপরাধী ও খোলাখুলি সন্ত্রাসবাদীদের বাড়বাড়ন্ত.  আমরা অবশ্যই, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলছি, যারা রাজনৈতিক রাস্তায় চলছে, কোন নাশকতাবাদী কাজকর্ম করছে না. মস্কোতে আমরা ইতিমধ্যেই চারটি বিরোধী প্রতিনিধি দলের সঙ্গে আলোচনা করেছি, তাদের মধ্যে সিরিয়ার জাতীয় সভার দলও ছিল, যেখানে বুরখান গালিউন নেতা.

    এখন আমরা অপেক্ষায় রয়েছি অন্য প্রতিনিধি দলের, এটা বেশ বড় দল- তার নাম জাতীয় কো-অর্ডিনেশন কমিটি. আমরা যে রকম বুঝতে পেরেছি, তা হল এই দলের সিরিয়ার ভিতরে প্রতিনিধিত্ব রয়েছে, আর তার বাইরেও রয়েছে. আমরা এই গোষ্ঠীর নেতৃস্থানীয় প্রতিনিধিদের অপেক্ষা করছি, যাঁরা আসবেন দামাস্কাস ও প্যারিস থেকে”.

    এই দলের কোন নির্দিষ্ট রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক পরিকল্পনা কি আছে? নাকি শুধুই বর্তমানের প্রশাসনের প্রতি নেতিবাচক মনোভাবই তাদের সম্বল?

    “এটা সঠিক প্রশ্ন – কে কি চায় আর কার কোন দিতে লক্ষ্য. আর এই প্রশ্ন গুলিই, আমাদের যেমন মনে হয়েছে, সিরিয়ার লোকরা একে অপরকে প্রশ্ন করতে বাধ্য, যদিও আমাদেরও গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে এই সম্বন্ধে জানা. ঠিক এই কারণেই আমরা জাতীয় আলোচনার পক্ষপাতী, যার মধ্যে সমস্ত রাজনৈতিক শক্তিরই উচিত্ হবে অংশ নেওয়া ও সমস্ত প্রশ্ন নিয়েই আলোচনা করা. আর আমরা আসা করবে যে, সব থেকে ভাল হল – এই সমস্ত প্রশ্নই আলোচনা করে নেওয়া. শেষ অবধি সিরিয়া জনগন কোন একটা সর্ব সম্মতি ক্রমে গৃহীত সিদ্ধান্তে পৌঁছতে বাধ্য, যাতে গৃহযুদ্ধ এড়ানো যায় ও সিরিয়া এবং এই সমস্ত অঞ্চলের জন্য ধ্বংসের হাত থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যায়.

এই প্রসঙ্গে আমরা সক্রিয়ভাবে আন্নানের মিশনকে সমর্থন করছি, যার ম্যান্ডেটে স্পষ্ট করে উল্লেখ করা হয়েছে কাজ – সিরিয়ার প্রশাসন ও বিরোধী পক্ষের মধ্যে আলোচনাকে সহায়তা করা. এখন সেখানে কোফি আন্নানের গোষ্ঠীর বিশেষজ্ঞরা দামাস্কাসে কাজ করছেন. তার মধ্যেই বিরোধী পক্ষের সঙ্গেও যোগাযোগ করা হচ্ছে – এই কারণে যে, সমস্ত প্রস্তাবের উপরে ভিত্তি করেই সমস্ত খুঁটিনাটি বিষয় গুলিকে তৈরী করা, যাতে বোঝা যায় যে, কি করে এই ধারণাকে বাস্তবে কার্যকরী করা যায়. এটার জন্য প্রয়োজন ইতিবাচক ও গঠন মূলক উত্তরের – প্রসঙ্গতঃ শুধু তা কথায় হলেই চলবে না, কাজে হতে হবে – আর শুধু প্রশাসনের তরফ থেকেই নয়, বরং বিরোধী পক্ষের তরফ থেকেও”.