ফ্রান্সে এক হত্যাকারীর খোঁজ শুরু হয়েছে, যে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে বিগত সাত দিনে তিনটি শিশু এবং চারজন সাবালক ব্যক্তিকে হত্যা করেছে. ইতিহাসে এই প্রথম রাষ্ট্রপতি সর্বোচ্চ মানের – লাল মানের – সন্ত্রাসবিরোধী “ভিজিপিরাত” পরিকল্পনা প্রবর্তন করেছেন এবং দক্ষিণ পিরিনেইয়ের গোটা অঞ্চলে সর্বোচ্চ বিপদের কথা ঘোষণা করেছেন. এখন দেশের স্কুল-কলেজে পাঠ স্থগিত রাখা যেতে পারে, শহরে সামাজিক পরিবহণের চলাচল আংশিকভাবে বা সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করা যেতে পারে. ফরাসীদের জন্য তুলুজে ইহুদী স্কুলে এ আক্রমণ জাতীয় বিপর্যয় হয়ে উঠেছে. পুলিশের স্থিরবিশ্বাস যে, একই অজানা অপরাধী ১১ই মার্চ তুলুজে বিমান-অবতরণ বাহিনীর সৈনিককে হত্যা করেছিল, আর তার চার দিন পরে মন্তোবানে তিনজন ফরাসী সৈনিককে হত্যা করে, আর গত সোমবার তুলুজে ইহুদী কলেজে আক্রমণ চালিয়ে তিনজন শিশু ও তাদের শিক্ষককে হত্যা করে. ফ্রান্সের শৃঙ্খলারক্ষা সংস্থা মনে করে যে, এ সব হত্যা করতে পারে কোনো ইস্লামপন্থী অথবা রাডিক্যাল দলের সদস্য. সোমবার সন্ধ্যায় প্যারিসের পুরনো সেনাগগে নিহতদের স্মৃতিতে আরাধনা হয়েছে, যাতে অংশগ্রহণ করে প্রায় দশ হাজার লোক.