সোচী শহরে ২০১৪ সালের শীত অলিম্পিক গেমসের প্রস্তুতি করতে গিয়ে পরিবেশ নিরাপত্তার জন্য অনেক অতুলনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে. সমস্ত ধরনের কাজ করার জন্য তথাকথিত সবুজ মানদণ্ড ব্যবহার করা হচ্ছে বলে জাতীয় সভার অধিবেশনে নির্মাতারা জানিয়েছেন.

    এই “সবুজ” মানদণ্ডের বিষয়টি অলিম্পিকের নির্মাণের ক্ষেত্রে বহু উদ্ভাবনী প্রযুক্তির সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করেছে. এটা যেমন ক্রীড়াঙ্গণ গুলিতে শক্তি সাশ্রয়কারী কাঁচের বাহির আবরণ, আর নিয়ন্ত্রণের স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থা, যা শক্তি ব্যবহার বিষয়ে খরচ কমাতে সহায়তা করে, তেমনই পর্যটন কেন্দ্র সোচী শহরের লোকদের ও অতিথিদের অসুবিধা দূর করার জন্য ব্যবস্থা: নির্মাণ ক্ষেত্র নানা ধরনের জঞ্জাল দিয়ে ভরিয়ে রাখা যাবে না, আর তৈরী হওয়া জায়গা গুলির চারপাশে স্বীকৃত মাত্রার বেশী ধূলি কণা বাতাসে থাকতে পারবে না.

    সোচী শহরের নির্মাণ কার্যে রত রাষ্ট্রীয় “অলিম্পস্ত্রোই” কোম্পানীর পরিবেশ সংরক্ষণ দপ্তরের ডিরেক্টর গ্লেব ভাতলেত্সভ বলেছেন যে রাষ্ট্রীয় কর্পোরেশন নিজে থেকেই সবুজ মানদণ্ড তৈরী করেছে, যা এই খানে নির্মীয়মান জায়গা গুলির জন্য দেওয়া স্বেচ্ছাকৃত শংসাপত্রে সমাকলিত করা হয়েছে. সেই সকল চাহিদা, যা জায়গা গুলির নির্মাতাদের কাছে করা হয়েছে, তা শতকরা সত্তর ভাগ রাশিয়ার আইন অনুযায়ী চাহিদার চেয়ে বেশী. আর এটা আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধিতে সহায়তা করে যে, ২০১৪ সালেও, যখন এই জায়গা গুলিতে অলিম্পিকের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা হবে, তখনও সেই গুলি সর্বাধুনিক মানের উপযুক্তই থাকবে.

একই সঙ্গে সোচী শহরে অলিম্পিকের খেলার প্রস্তুতি হিসাবে শুধু নতুন জায়গাই তৈরী করা হচ্ছে না, পুরনো গুলিকেও আধুনিক করা হচ্ছে, যেগুলি এই শহরের জীবনের জন্য অপরিহার্য, এই বিষয়ে জানিয়ে প্রাকৃতিক রসদ ও পরিবেশ দপ্তরের উপ মন্ত্রী রিনাত গিজাতুলিন বলেছেন:

“অলিম্পিকের ক্রীড়া প্রতিযোগিতার প্রস্তুতি হিসাবে দশ শতাংশের বেশী বাজেট বরাদ্দ অর্থ রাষ্ট্রীয় কর্পোরেশন “অলিম্পস্ত্রোই” কোন না কোন ভাবে পরিবেশ সংরক্ষণের জন্য ব্যয় করছে. কিন্তু তা শুধু ক্ষতিপূরণ সংক্রান্ত কাজ কর্মের জন্যই নয়, বরং জল নিকাশ ও পরিশোধন ব্যবস্থা নির্মাণ, নতুন যোগাযোগের ব্যবস্থা তৈরী, পৌর বসতি নির্মাণ, গরম জল সরবরাহের বয়লার গুলিকে এক ধরনের জ্বালানী থেকে অন্য ধরনের জ্বালানী, যা কম ক্ষতিকারক, সেই গুলিতে পরিবর্তন, জঞ্জাল জমা করার জন্য নতুন জায়গা তৈরী ইত্যাদি কাজে. বোঝাই যাচ্ছে যে, বর্তমানে বহু পরিকাঠামো সংক্রান্ত ক্ষেত্রে আমরা মাঝামাঝি জায়গায় রয়েছি. ২০১২ সালের মার্চ মাসে এই ব্যবস্থা গুলির সরাসরি ফল আমরা হয়ত দেখাতে পারবো না, তা স্বত্ত্বেও আমরা বুঝতে পারি যে, ২০১২ – ২০১৩ সালে এই সমস্ত জায়গার নির্মাণ শেষ হলে বড় সোচী শহরের পরিবেশ সংক্রান্ত পরিস্থিতি হয়তো ভালই হবে”.

তাছাড়া, ২০১৩ সালের শেষে সোচীর ম্জীমতা নদীর অববাহিকা আবার পুরনো জায়গাতেই ফিরিয়ে আনা হবে. এই প্রকল্প রাশিয়ার জলবায়ু দপ্তর, জল সম্পদ দপ্তর ও সেন্ট পিটার্সবার্গের জল পরিযোজনা নির্মাণ ইনস্টিটিউটের সহায়তায় কুবান অঞ্চলের জল সম্ভার নিয়ন্ত্রণ দপ্তর তৈরী করেছে. এই বছরের আগষ্ট মাসে তার বাস্তবায়ন শুরু হবে.