নিউইয়র্কে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের বিশেষ অধিবেশন হচ্ছে. এই বৈঠকে অংশ নিচ্ছেন, অংশতঃ রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রী সের্গেই লাভরভ, গ্রেট ব্রিটেনের উইলিয়াম হেগ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র সচিব হিলারি ক্লিন্টন.

    রাশিয়া আগের মতই রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্ত নিয়ে সমঝোতা করতে প্রস্তুত, কিন্তু তা হবে আরব লীগের সঙ্গে সমঝোতা করা নীতি অনুযায়ী, এই রকমের ঘোষণা করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রী সের্গেই লাভরভ. তিনি আন্তর্জাতিক মধ্যস্থ “চতুষ্টয়” কে নিকটপ্রাচ্যের সমস্যা সমাধানের জন্য সক্রিয় ভাবে নিজেদের কাজ করতে আহ্বান করেছেন.

    কিন্তু সিরিয়ার প্রশাসনের দ্রুত পরিবর্তন চাওয়া হলে তা বিরোধকে বাড়িয়েই দেবে, বলে ঘোষণা করেছেন সের্গেই লাভরভ. এটা ন্যাটো জোটের ক্ষেত্রে বলা যেতে পারে, যারা লিবিয়ার উপরে উড়ান বিহীণ নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখার জন্য এগিয়ে এসেছিল, কিন্তু কার্য ক্ষেত্রে প্রবল বোমা বর্ষণ করা হয়েছিল.

    লাভরভ উল্লেখ করেছেন যে, রাশিয়ার এই সম্পর্কে অবস্থান প্রথম থেকেই স্পষ্ট ও পরম্পরা বজায় রেখেই করা হয়েছে, যা সিরিয়ার সঙ্কটের দ্রুত সমাধানের জন্য ও সামরিক শক্তি প্রয়োগ বন্ধ করার জন্য করা হয়েছে. “এই পথে রয়েছে পরবর্তী পাঁচটি নীতি, যা আমরা আরব লীগের দেশ গুলির সাথে এই বছরের ১০ই মার্চে একত্রে সমঝোতা হিসাবে গ্রহণ করতে পেরেছি ও যা বর্তমানের পরিস্থিতিতে ব্যবহার যোগ্য”, - বলে উল্লেখ করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্র প্রধান.

    এখানে কথা হচ্ছে সমস্ত পক্ষের থেকেই অস্ত্র সম্বরণের, কোন রকমের পক্ষপাতিত্ব বিহীণ পর্যবেক্ষণের, যে কোন রকমের বাইরের থেকে অনুপ্রবেশ বন্ধ করার, সমস্ত সিরিয়ার লোকদের জন্যই মানবিক সাহায্যের বিষয়ে কোন রকমের বাধা হীন চলাচল.

    পঞ্চম নীতি হল, “রাষ্ট্রসঙ্ঘের মহা সচিব ও আরব লীগের পক্ষ থেকে সমর্থন করা কোফি আন্নানের মিশনকে সর্বতঃ ভাবে সমর্থন, যার লক্ষ্য প্রশাসন ও সমস্ত বিরোধী পক্ষের মধ্যে নির্দেশিত তালিকা অনুযায়ী আলোচনার ব্যবস্থা, যা এই মিশনের কাজের মধ্যে পড়ে”.