ইজিপ্টের সংবাদপত্র আল- আখরাম জানিয়েছে, তুরস্কের রাষ্ট্রপতি আবদুল্লা গ্যুল এই রকম বুঝতে দিয়েছেন যে, আঙ্কারা "সিরিয়ার মিত্র" সম্মেলনে ফ্রান্সকে আহ্বান করতে পারে. রাষ্ট্রপতি গ্যুল টিউনিশিয়াতে এই দেশের রাষ্ট্রপতি মনসেফ মারজুকির সঙ্গে দেখা করার পরে বলেছেন যে, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আন্তর্জাতিক সম্মেলনের সাথে গুলিয়ে ফেলার দরকার নেই.

    তুরস্ক ও ফ্রান্সের সম্পর্ক জটিল হয়েছে, যখন ফ্রান্সের পার্লামেন্ট আর্মেনিয়ায় তুর্কী ওসমান সাম্রাজ্যের আগ্রাসনের ফলে গণ হত্যাকে স্বীকার করে নেয়. পার্লামেন্ট এক আইন নিয়েছে, যার ফলে এই গণ হত্যার ঘটনাকে অস্বীকার করলে তা আইন ভঙ্গের সমান হবে, কিন্তু দেশের আদালত এই আইন প্রত্যাখ্যান করেছে.

0    ফেব্রুয়ারী মাসে "সিরিয়ার মিত্র" সম্মেলন প্রথমবার হয়েছে. দ্বিতীয় রাউণ্ড শীঘ্রই ইস্তাম্বুলে হওয়ার কথা. আয়োজকদের কথা অনুযায়ী এর প্রধান বিষয় হবে সিরিয়াতে রক্ত ক্ষয় বন্ধ করা. তুরস্কের রাষ্ট্রপতি আশা প্রকাশ করেছেন যে, সম্মেলনে রাশিয়া অংশ নেবে, যারা এই এলাকায় অনেক ভূমিকা পালন করে. এর আগে মস্কো এই সম্মেলনে অংশ নিতে অস্বীকার করেছিল, কারণ এর অংশগ্রহণকারী দেশ গুলি সিরিয়াতে সরকারের পতন ঘটাতেই শুধু চাইছে.