বলশয় থিয়েটারের কর্তৃপক্ষ ও শিল্পীরা ২০১২ সালের ১১ই মার্চ দিনটিকে তাঁদের জন্য ভাগ্য নির্ধারক বলে মনে করেছেন. এই দিনে দেশের প্রধান থিয়েটার ইন্টারনেটে রাশিয়ার লোকেদের জন্য নিজেদের ব্যালে দেখানো শুরু করছে. আগে এই থিয়েটারের ব্যালে সরাসরি দেখার সৌভাগ্য হয়েছিল শুধু বিদেশের গ্রাহকদেরই.

    সরাসরি সম্প্রচারের ধারণা বহু দিন ধরেই করা হয়েছিল. ১০ বছর আগে এক বিখ্যাত ফরাসী কোম্পানী বলশয় থিয়েটারের কিছু ব্যালে রেকর্ড করেছিল বিদেশে দেখানোর জন্য. আর ২০১০ সালের মার্চ মাসে "প্যারিসের আগুন" নামের ব্যালে প্রথমবার সরাসরি ফ্রান্সের সিনেমা হল গুলিতে দেখানো হয়েছিল. এই পরীক্ষা মূলক প্রদর্শনীকে সফল বলে মনে করা হয়েছিল, জনগন সহর্ষে তা গ্রহণ করেছিল. সেই দিন হতে দুই বছর কেটে গিয়েছে. বলশয় থিয়েটারের বিখ্যাত ব্যালে গুলি বিশ্বের মহাদেশ গুলিতে সাফল্যের সাথেই দেখানো হয়েছে সমস্ত সিনেমা হলে. এই সময়ের মধ্যে বিশ লক্ষেরও বেশী লোক তা দেখেছেন. এটা আমাদের খুশী না করে পারে না. কিন্তু একই সময়ে থিয়েটারের কর্তৃপক্ষ সব সময়েই বুঝেছেন যে, রাশিয়ার দর্শকদের বঞ্চিত করা হচ্ছে. আজ অবধি যাঁরা ব্যালে ভালবাসেন, রাশিয়াতে থাকেন, তাঁদের জন্য কোন সিনেমা হল তৈরী হয় নি, যেখানে দেশের প্রধান থিয়েটার থেকে সরাসরি কোন ব্যালে দেখানো হতে পারে. এর একটা প্রধান কারণ – সিনেমা হল মালিকদের এই বিষয়ে ঔদাসীন্য. তাঁদের কেউই চান নি এই ধনের প্রচারে অংশ নিতে. কিন্তু কেন – তা শুধু তাঁরাই জানেন.

    আর এবারে, অবশেষে, পরিস্থিতি থেকে বের হওয়ার পথ পাওয়া গিয়েছে. ১১ই মার্চ থেকে বলশয় থিয়েটার রুশ লোকদের জন্য সম্প্রচার শুরু করছেন – যাঁরা ইন্টারনেট ব্যবহার করেন. গুগল কোম্পানীর সৌজন্যে ও তাঁদের সহকর্মীদের দাক্ষিণ্যে, রাশিয়ার লোকেরা এবারে ইউটিউব চ্যানেলে সরাসরি সারা বিশ্বের সিনেমা হল গুলির লোকদের সাথে বলশয় থিয়েটারের ব্যালে দেখতে পাবেন. এই প্রকল্প শুরু হতে চলেছে এক উজ্জ্বল ব্যালে “কর্সার” দিয়ে, যা এই সন্ধ্যায় বলশয় থিয়েটারের ঐতিহাসিক মঞ্চেই উপস্থাপিত হবে. সারা বিশ্বের সব জায়গাতেই এই প্রকাণ্ড মঞ্চ উপস্থাপনা দেখতে পাওয়া যাবে. আর প্রথমবার তাঁদের সকলের মধ্যে থাকবেন রুশ মানুষরা.

    বলশয় থিয়েটার শুধু প্রথম উপস্থাপনা ঘোষণা করেই ক্ষান্ত হয় নি, তারা পরবর্তী অনুষ্ঠানের তালিকাও প্রকাশ করেছে. তা আগামী দেড় বছরের জন্য তৈরী করা হয়েছে. “কর্সার” হওয়ার পরে দেখানো হবে “উজ্জ্বল ঝর্না”. ২৯শে এপ্রিল সারা বিশ্বের লোকরা তা দেখতে পাবেন. আর তারপরে দেখানো হবে এই বিখ্যাত থিয়েটারের আরও অনেকগুলি খুবই সুন্দর প্রযোজনা. আসন্ন সময়ে সরাসরি প্রচারের অনুষ্ঠান সূচী বলশয় থিয়েটারের সাইটে দেখা যাবে.

    আশা করা হচ্ছে, যে এই প্রকল্প রাশিয়ার জনগনের মধ্যে খুবই জনপ্রিয় হবে. কারণ, এই থিয়েটারের টিকিটের জন্য আগ্রহ ও দামের কথা বিচার করলে আর তারই সঙ্গে দেশের অন্যান্য শহর থেকে মস্কোর বিশাল দূরত্ব বিচার করলে, ব্যালে নাচের সমস্ত ভক্তরা কোন দিনই এই থিয়েটারের ব্যালে জীবন্ত দেখতে পাওয়ার সুযোগ নাও পেতে পারেন. তাছাড়া, দর্শকদের এখন একেবারেই মহিলাদের সান্ধ্য পোষাক বা পুরুষদের স্মোকিং স্যুট পরে আসার দরকার হবে না. তাঁরা ব্যালে দেখতে পারবেন, নিজেদের গৃহের নরম আসনে গা ঢেলে দিয়েই. এই সব কিছুর জন্য তাঁদের শুধু প্রয়োজন – কম্পিউটার চালু করে ইন্টারনেটে ঢোকা.