ইরানের লোকসভা এক আইন গ্রহণ করেছে, যেটা অনুযায়ী পুরুষ মানুষ স্রেফ মুখের কথায় সাময়িক ভাবে বিয়ে করতে পারে, এই খবর দিয়েছে বৃহস্পতিবারে আন্তর্আরবীয় সংবাদপত্র “এলাফ”. ইরানের সমাজে এই আইন পরস্পর বিরোধী প্রতিক্রিয়া তৈরী করেছে.

       এই আইনের ফলে সাময়িক বিয়ে কয়েক ঘন্টা থেকে কয়েক বছর টিকতে পারে বলে সংবাদপত্র জানিয়েছে. ইরানের পার্লামেন্ট সদস্য সাত্তার খুদায়াত মনে করেন যে, এটা ইরানের ঐতিহ্য থেকে সরে আসা. “এই নীতি অনুযায়ী আমাদের ও পশ্চিমের লোকদের মধ্যে আর কোনও তফাত্ রইল না. যে কোন পুরুষ মানুষই এবারে বিয়ের শংসাপত্র ছাড়াই মহিলার সঙ্গে যৌণ সম্পর্কে লিপ্ত হতে পারবে”, - ঘোষণা করেছেন খুদায়াত.

       সাময়িক বিবাহ সব সময়েই ইরানের সমাজে এক প্রশ্ন ছিল, যা বিতর্ক তৈরী করেছিল. সুন্নীরা মনে করতেন যে, অবতার মুহম্মদ এই ধরনের বিবাহ নিষিদ্ধ করেছিলেন. কিন্তু শিয়া মুসলমানদের মধ্যে, যারা ইরানে বেশীর ভাগ, সাময়িক বিবাহ প্রথা চালু ছিল. আইনে স্বীকৃতী দেওয়ার পরে এই বিষয়ে বিরোধী লোকদের সংখ্যা আরও বেশী হল বলে জানিয়েছে “এলাফ” সংবাদপত্র.