আমেরিকার বিদেশ দপ্তরের মুখপাত্র ভিক্টোরিয়া নিউল্যান্ড বলেছেন, যে তার দেশ সিরিয়ায় নতুন সংবিধানের প্রশ্নে গণভোটের ফলাফলকে স্বীকার করে না ও এই ঘটনাকে বেহায়াপনা বলে গণ্য করে. তিনি বলেছেন, যে যতদিন পর্যন্ত হোমস ও সিরিয়ার অন্যান্য শহরে শাসক কর্তৃপক্ষ গোলাগুলি চালাবে, সে দেশে গণতান্ত্রিক পরিবর্তনের কোনো কথাই উঠতে পারে না.

      গত রোববার ২৬শে ফেব্রুয়ারী সিরিয়ায় নতুন সংবিধান গ্রহণের প্রশ্নে গণভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে. প্রস্তাবিত সংবিধানের মুখ্য নতুনত্ব হচ্ছে আট নম্বর ধারা বাতিল করা, যা অনুযায়ী বাস(পুণরুত্থাণ)পার্টির দেশে একচ্ছত্র নেতৃত্ব দেওয়ার অধিকার ছিল. ঐ ধারার বদলে সব রাজনৈতিক পার্টির সমানাধিকারের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে. নতুন সংবিধানের স্বপক্ষে ৮৯,৪ শতাংশ ভোটদাতা ভোট দিয়েছে. ফ্রান্স প্রেস সংবাদসংস্থা প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী, ৫৭,৪ শতাংশ নির্বাচক গণভোটে অংশ নিয়েছে.