রাশিয়া ও উক্রাইনার বিশেষ গোয়েন্দা বিভাগ ভ্লাদিমির পুতিনকে হত্যা করার প্রচেষ্টা ও রাশিয়ার ভূখন্ডে একসারি সন্ত্রাসবাদী আক্রমণ রোধ করেছে. সন্ত্রাসবাদীরা, যাদের আগেকার সব অপরাধের জন্য গ্রেপ্তার করার উদ্দেশ্যে আন্তর্জাতিক স্তরে হুলিয়া জারী করা হয়েছিল, তাদের মাসখানেক আগে উক্রাইনার ওদেসা শহরে গ্রেপ্তার করা হয়েছে. তাদের জবানবন্দী থেকে জানা গেছে, যে হত্যাকান্ড ও একসারি আতঙ্কবাদী হামলা তারা সংগঠন করতে চেয়েছিল রাশিয়ায় রাষ্ট্রপতি নির্বাচন সমাপ্ত হওয়ার পরে পরেই.

      আজ সোমবার রুশী রাষ্ট্রীয় দূরদর্শনের প্রথম চ্যানেল উপরোক্ত খবর সম্প্রচার করেছে. উক্রাইনার বিশেষ গোয়েন্দা বিভাগ এবং রুশী প্রধানমন্ত্রীর তথ্যদপ্তর খবরটির সত্যতা স্বীকার করেছে. সর্বশেষ খবর অনুযায়ী, দুই গুন্ডা – ইলিয়া পিয়ানজিন ও রুসলান মাদায়েভ, যাদের আগে করা অপরাধবলীর জন্য আন্তর্জাতিক স্তরে খোঁজা হচ্ছিল, ওদেসায় এসে পৌঁছায় সংযুক্ত আরব আমীরশাহি থেকে. পিয়ানজিনের জবানবন্দী অনুযায়ী, তারা নির্দিষ্ট নির্দেশাবলী পেয়েছিল চেচেন সন্ত্রাসবাদীদের প্রধানপান্ডা ডোকু উমারভের কাছ থেকে.

      আমাদের বলা হয়েছিল, যে প্রথমে ওদেসায় গিয়ে বোমা বানানো শিখবে, আর তারপর মস্কোয় গিযে কল-কারখানায় বিস্ফোরণ ঘটাবে. তারপরে পুতিনকে হত্যার চেষ্টা করবে. আমরা ওদেসায় এসে পৌঁছানোর পরে রুসলানকে এক ব্যক্তির টেলিফোন নম্বর দেওয়া হয়, যার আমাদের সাথে এখানে সাক্ষাত করার কথা ছিল.

      ওদেসার সন্ত্রাসবাদীদের জন্য কেবলমাত্র ট্রানসিট শহর হওয়ার কথা ছিল. কিন্তু বোমা বানানোর সময় একজন গুন্ডা - রুসলান মাদায়েভ বোমা ফেটে মারা যায়. দমকল বাহিনী এসে পৌঁছানোর আগেই উক্রাইনী মধ্যস্থতাকারী ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়.  আগুনে দগ্ধ আহত পিয়ানজিনকে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে ভর্তি করা হয়, যেখানে তাকে দিবারাত্র প্রহরা দিয়ে রাখা হয়েছিল. পুয়ানজানের দেওয়া জবানবন্দীই পলাতক তৃতীয়  অপরাধী চেচনিয়ার আদাম ওসমায়েভাকে আটক করতে সাহায্য করেছে. তাকে সেই ৪ঠা ফেব্রুয়ারী গ্রেপ্তার করা হয়, কিন্তু উক্রাইনার বিশেষ গোয়েন্দা বিভাগ শেষমুহুর্ত পর্যন্ত গ্রেপ্তার করার খবর জানায়নি. সবকিছুর মূলে ওসমায়েভার কাছ থেকে আদায় করা তথ্যাবলী. ওর ল্যাপ টপে সমস্ত নাশকতামুলক কাজের পরিকল্পনা বিষদে ধরা ছিল, বলে জানিয়েছে উক্রাইনার বিশেষ গোয়েন্দা বিভাগ.

      আবিস্কৃত ফাইলগুলির মধ্যে আছে ভিডিও, যারমধ্যে প্রহরা সহ পুতিনের গাড়ির যাতায়াতও আছে. যাতে ভালো করে বোধগম্য হয়, যে কিভাবে প্রহরাবৃত পুতিন গাড়িতে ওঠেন, কতগুলি গাড়ি তাকে পাহারা দিয়ে নিয়ে যায় – সেইজন্য বিভিন্ন দৃষ্টিকোন থেকে এবং বিভিন্ন রাস্তায় ভিডিও তোলা হয়েছিল.

 

        খোদ ওসমায়েভ জানিযেছে, যে অধিকাংশ হামলা দূরত্ব থেকে রিমোট কন্ট্রোলের মাধ্যমে করার কথা ছিল. তবে আত্মঘাতীর বিস্ফোরণেরও পরিকল্পনা ছিল. ওসমায়েভের ভাষায়, অভিযানের প্রস্তুতি চূড়ান্ত পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছিল.

     এই ধরনের সামরিক মাইন আছে. সুতরাং আত্মঘাতী বিস্ফোরণও আবশ্যকীয় ছিল না. সর্বশেষ সময়সীমা ছিল রাশিয়ায় রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ঠিক পরে.

     ওসমায়েভ বর্তমানে তদন্তকারীদের সাথে সক্রিয়ভাবে সহযোগিতা করছে. বিস্ফোরক পদার্থ আগে থেকে মস্কোয় আনা হয়েছিল. এই ব্যাপারে তদন্ত চলছে. পুরো তথ্য অবশ্যই জানানো হচ্ছে না. তবে, সবকিছু দেখে শুনে মনে হচ্ছে, যে উক্রাইনা ও রাশিয়ার বিশেষ গোয়েন্দা বিভাগ বেশ চটপট ব্যবস্থা নিয়েছে.