রাশিয়ায় এখন শেষ পর্যায়ের নির্বাচনী প্রচারণা চলছে। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে অংশ নেওয়া প্রার্থীদের সমর্থনে চলতি সপ্তাহে মস্কোতে  বেশ কয়েকটি কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে।পুতিনের সমর্থনে সবচেয়ে বেশী সংখ্যক মানুষ উপস্থিত ছিলেন। অন্যদিকে পুতিনের বিপক্ষে ভোটে অংশ নেওয়া ৪ প্রার্থী আশ্বাসের সাথে বলেছেন,বেশ কিছু  অবাক করার ঘটনা প্রস্তুত করছেন যা ভোটারদের আগ্রহ তৈরী করবে। একই সাথে তারা ভোটের জন্য কয়েক হাজার পর্যবেক্ষক তৈরী করছেন।

বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও আসন্ন রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রার্থী ভ্লাদিমির পুতিন সোমবার ভোটারদের উদ্দেশ্যে নিজের আরও একটি প্রবন্ধ প্রকাশ করেছেন। এবার পুতিন জাতীয় নিরাপত্তা নিয়ে নিজের ভবিষ্যত কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরেন। ওই প্রবন্ধে তিনি লিখেছেন,’বিশ্ব পরিবর্তন হচ্ছে। বিশ্ব অর্থনীতি ও অন্যান্য উপকরণের আলোক সবসময় সামরিক শক্তি ব্যবহার করে নিজেদের সমস্যা অন্যদের খরচে মেটানোর প্রলোভন থাকে। এর অর্থ হচ্ছে,আমরা অন্যদের কাছে নিজেদের অক্ষমতা প্রকাশ করার অধিকার রাখি না’। পুতিন স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন,’গত ১২ বছর সরকার সেনাবাহিনীর অভ্যন্তরীণ মন্দা কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হয়েছে এবং সংস্করণের কাজ শুরু করেছে’।যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর রকেটবিরোধী প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নিয়েও পুতিন মতামত দেন। বৃহস্পতিবার ভ্লাদিমির পুতিন রাশিয়ার জন্য বহিঃশক্তির হুমকির কথা খোলাখুলি করে বলেন। মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে নিজের সমর্থকদের পুতিন বলেন,’আমাদের কাজে এসে কেউ বাধা দিবে,আমরা তা হতে দিব না,রাশিয়ার ওপর কারো কষ্ট চাপিয়ে দিতে দেয়া যাবে না। কারণ,আপনাদের সাথে নিয়ে আমাদের নিজেদের রয়েছে অনেক কষ্ট যা আমাদের সবসময় সাহায্য করেছে। আমরা বিজয়ী এক জাতি। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম তা বয়ে চলছে। আমরা এবার জয়ী হব। আমরা কাউকে হঠিয়ে দেব না,উপরন্তু অন্যদেরকে আমাদের দেশের চারপাশে মিলিত করার আহবান জানাব। তারাই যারা রাশিয়াকে নিজেদের মাতৃভূমি মনে করেন,একে বিশ্বাষ করতে তৈরি আছেন এবং যারা এর মান রক্ষা করতে পারবেন শুধুমাত্র তারাই। আমরা সবাইকে নিজের মাতৃভূমি ত্যাগ না করে বরং আমাদের সাথে একত্রিত হয়ে এখানেই জনগনের জন্য কাজ করার আহবান জানাচ্ছি।নিজের হ্রদয়কে আমরা যেমন ভালবাসি ঠিক তেমনিভাবে দেশকে ভালবাসুন’।

ভ্লাদিমির পুতিনের এই বানীতে পশ্চিমা দেশের অনেকেই মাত্রাতিরিক্ত সামরিক সংকেত শুনতে পেয়েছেন। অন্যদিকে চলতি সপ্তাহে পুতিনের বিরোধীদলগুলো বর্তমান সরকারের সমালোচনা করার সুযোগ হাতছাড়া করেন নি। ন্যায্য রাশিয়া দলের নেতা ও রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রার্থী সেরগেই মিরোনোভ গনমাধ্যমে বিরোধীদলের প্রচারনা সীমাবদ্ধতা রাখায় সরকারকে দায়ী করেছেন। তিনি বলেন,‘পার্লামেন্ট নির্বাচনের নিয়মিত প্রচারনায় টেলিভিশন সংবাদের জন্য আমাদের ভিডিও ফুটেজ ব্যবহার না করেই অবান্তর সংবাদ প্রচার করছে। সত্য প্রচারে তারা ভয় পাচ্ছে। আমাদের জীবনে কি পরিবর্তন আমি আনতে চাই এবং নির্বাচনে জয়ী হলে আমার কার্যক্রম কি হবে তা জনগন জেনে যাবে তাতেও তারা ভয় পাচ্ছে। আমরা আজ এখানে এবং বলতে চাই,গনমাধ্যমে সবার জন্যই ন্যায্য অধিকার থাকা উচিত’।

সমাজবিজ্ঞানীদের সর্বশেষ জরিপ অনুযায়ি,ভ্লাদিমির পুতিন নির্বাচনের প্রথম রাউন্ডেই জয়ী হবেন এবং ৫০ ভাগেরও বেশী ভোট পাবেন। জরিপের ২য় স্থানে রয়েছেন কমিউনিস্ট নেতা গেনাদি জুগানোভ। তিনি ১০ থেকে ১৫ ভাগ ভোট পাবেন।তৃত্বীয় স্থানে রয়েছেন লিবেরাল ডেমোক্রেটিক দলের প্রার্থী ভ্লাদিমীর জিরিনোভস্কী।এরপরই রয়েছেন সতন্ত্র প্রার্থী বিলিওনার মিখাইল প্রোখরভ এবং ন্যায্য রাশিয়া দলের নেতা এবং পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষের সাবেক প্রাধান সেরগেই মিরোনোভ।নির্বাচনে অংশ নেওয়া এই ৫ প্রার্থীই ভোটকেন্দ্রে নিজেদের পর্যবেক্ষক পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছেন।