সিরিয়ায় আজ রোববার নতুন সংবিধানের বিষয়ে গণভোট অনুষ্ঠিত হচ্ছে। নতুন খসড়া সংবিধানে সিরিয়ায় বহুদলীয় রাজনৈতিক ব্যবস্থা প্রবর্তনের প্রস্তাব,গনতন্ত্র ও জনগনের স্বাধীনতাকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। নতুন সংবিধানে ক্ষমতাসীন বাথ পার্টির একদলীয় শাসনের কথা উল্লেখ করা হয় নি। এছাড়া রাষ্ট্রের প্রধান সর্বোচ্চ দুই মেয়াদে ৭ বছর করে দ্বায়িত্ব পালন করার বিষয়টি বর্ননা করা হয়। নতুন এই সংবিধান গৃহীত হলেই আগামী মে মাসে সিরিয়ায় পার্লামেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এদিকে সিরিয়ার অস্ত্রধারী বিরোধীদল নতুন সংবিধানের বিষয়ে অনুষ্ঠিত হওয়া আজকের এই গনভোট প্রত্যাখান করেছে। তবে রাশিয়া নতুন সংবিধানের বিষয়ে সিরিয়ার আজকের এই গণভোটকে স্বাগত জানিয়েছে।

প্রসঙ্গত,২০১১ সালের মার্চ মাস থেকে সিরিয়ায় সরকারবিরোধী আন্দোলন শুরু হয়। জাতিসংঘের তথ্য মতে,ইতোমধ্যে দেশটিতে ৫ থেকে ৬ হাজার মানুষ নিহত হয়েছে। অন্যদিকে সিরিয়ার সরকার বলছে,বিরোধী দলের অস্ত্রধারীদের সাথে সংঘর্ষে সেনাবাহিনী ও পুলিশ বিভাগের  ২ হাজারেরও অধিক কর্মকর্তা নিহত হয়েছে।