বৃহস্পতিবারে এই কাজ আবার শুরু করা সম্ভব হয়েছে. কুরিল দ্বীপপূঞ্জের কাছে এই কারাকুমনেফত্ কোম্পানীর ট্যাঙ্কার আটকে পড়েছিল. রাশিয়ার বিপর্যয় ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি জানিয়েছেন যে, আপাততঃ একটি পাইপ দিয়েই জ্বালানী বের করে নেওয়া হচ্ছে, কোন রকমের খনিজ তেলের দূষণ পরিবেশে হয় নি. এই কাজের জন্য ৮৭ জন কর্মী ও ৩০টি যন্ত্র ব্যবহার করা হচ্ছে. দ্বিতীয় পাইপ লাগানোর জন্য প্রস্তুতি চলছে, খবর দিয়েছে ইন্টারফ্যাক্স সংস্থা.

    কুরিলস্ক শহরের স্থানীয় বিদ্যুত কেন্দ্রের জন্য এই ট্যাঙ্কার জ্বালানী নিয়ে আসছিল, ১৫ই ফেব্রুয়ারী সমুদ্রের ঝড় ওঠায় ট্যাঙ্কার মাঝ সমুদ্রে আনার চেষ্টা হয়েছিল, সেই সময়ে এখানের উপকূলে চরায় জাহাজটি আটকে যায়. ১৬ই ফেব্রুয়ারী সকালে এই জাহাজের ২০ জন কর্মীকে বন্দরে নামিয়ে আনা হয়েছিল.

    প্রায় ১২৭৫ টন জ্বালানী সমেত ট্যাঙ্কার থেকে ৩০০ টন সমুদ্রের জলে পড়ে যায়. এই অঞ্চলে দুটি জনপদ রয়েছে ও তিনটি মাছের ডিম পাড়ার নদী ও তিনটি মাছ প্রক্রিয়া করার কারখানা রয়েছে আর প্রায় ৭০ শতাংশ ইতুরুপ দ্বীপের লোক এই অঞ্চলে বাস করেন.