ইয়েমেনে মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত প্রাকমেয়াদী রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে প্রায় ৮০ শতাংশ নির্বাচক অংশগ্রহণ করেছে, জানিয়েছে "আল-জাজিরা" টেলি-চ্যানেল. আশা করা হচ্ছে যে, রাষ্ট্রপতি পদের জন্য একমাত্র প্রার্থী – উপ-রাষ্ট্রপতি আব্দ রাব্বো মানসুর হাদি ভোট দানের ফলাফলের ভিত্তিতে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হবেন. ইয়েমেনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে উত্তেজনাপূর্ণ পরিস্থিতিতে: মঙ্গলবার সন্ত্রাসবাদীদের আক্রমণের পরে এডেনের কাছে বহু নির্বাচনী কেন্দ্র বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল. তবে, নির্বাচনের আগের পরিস্থিতি ছিল বেশি গুরুত্বপূর্ণ. ৩৩ বছর দেশ শাসন করা রাষ্ট্রপতি আলি আব্দাল্লা সালেহ ছিলেন একমাত্র আরব রাষ্ট্রনেতা, যিনি ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারীতে শুরু হওয়া গণ আন্দোলনের পরে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেন. হিংসা এবং একসারি হত্যার ষড়যন্ত্র সত্ত্বেও সালেহ জুলাই মাস থেকে বিরোধীপক্ষের সাথে আলাপ-আলোচনা চালান. ২০১১ সালের নভেম্বরে তিনি পারস্য উপসাগরীয় আরব দেশগুলির সহযোগিতা পরিষদের দ্বারা প্রস্তাবিত শান্তিপূর্ণ মীমাংসার পরিকল্পনা স্বাক্ষর করেন. ২০১২ সালের জানুয়ারীতে ইয়েমেনের পার্লামেন্ট নতুন কর্তৃপক্ষের দ্বারা সালেহ-র আদালতী মামলা থেকে রেহাইয়ের গ্যারান্টি সংক্রান্ত আইন গ্রহণ করে. নতুন রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হবেন দু বছরের অন্তর্বর্তী কালের জন্য, যে সময়ের মধ্যে নতুন রাজনৈতিক ব্যবস্থা নিরূপণ এবং নতুন সংবিধান প্রণয়নের জন্য জাতীয় সংলাপের সম্মেলন আয়োজিত হবে. তার পরে দেশে রাষ্ট্রপতির এবং পার্লামেন্টের নির্বাচন হবে.